লন্ডন: ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) প্রোটোকল অনুসারে পাকিস্তানের বাঁ-হাতি স্পিনার কাশিফ ভাট্টিকে দু’বার কোভিড-১৯ নেগেটিভ পরীক্ষার পরে ইংল্যান্ডে পাকিস্তান দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

৩৩ বছর বয়সি এই পাক স্পিনার তৃতীয় ব্যাচের সঙ্গে ইংল্যান্ড পৌঁছানোর পর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল৷ তার আগে পাকিস্তানে থাকার সময়ও কোভিড-১৯ রিপোর্ট পজিটিভ আসে৷ কিন্তু তার পর ভাট্টির ফের কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হয়৷ রিপোর্ট নেগেটিভ আসে৷ পিসিবি-র প্রোটকল অনুসারে দু’বার রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর বাঁ-হাতি এই স্পিনারকে ইংল্যান্ডে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড৷

তবে যুক্তরাজ্যে অবতরণের পরে ইসিবি অর্থাৎ ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের প্রোটোকলের অধীনে ভাট্টির প্রাথমিক পরীক্ষার কোভিড-১৯ পজিটিভ আসার পরই তাঁকে পাকিস্তান দল থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন থাকবে বাধ্য করা হয়৷

ইসিবি-র একজন মুখপাত্র জানান, ‘খেলোয়াড়টি আগের কোভিড-১৯ পজিটিভ এসেছিল৷ তাই সংক্রমণ যাতে ছড়িয়ে না-পরে সেই কারণে ইংল্যান্ড জনস্বাস্থ্য বিভাগের একজন ভাইরোলজিস্টের পরামর্শে খেলোয়াড়কে বিচ্ছিন্ন রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল৷ তবে ওই ক্রিকেটারটির দ্বিতীয়বার রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর দলের সঙ্গে অনুশীলনের অনুমতি দেওয়া হয়৷

ভাট্টি সহকর্মী হায়দার আলি ও ইমরান খান-সহ দলের ম্যাসিও মালং আলি ছাড়াও যুক্তরাজ্যের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিলেন। তাদের সবাই প্রাথমিকভাবে পাকিস্তানে ইতিবাচক পরীক্ষা করেছিল।

২৯ শে জুন পাকিস্তানের স্কোয়াডের বেশিরভাগ খেলোয়াড় ইংল্যান্ডে অবতরণ করেছিলেন৷ এঁরা ছিলেন ফখর জামান, মহম্মদ হাসনাইন, মহম্মদ হাফিজ, মহম্মদ রিজওয়ান, শাদাব খান এবং ওহাব রিয়াজ৷ পরীক্ষায় নেগেটিভ আসার পর এই সকল খেলোয়াড়দের ইংল্যান্ডে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় পিসিবি৷ এর কিছু দিন পরে পাকিস্তানি খেলোয়াড়দের এবং তৃতীয় ব্যাচ 8 জুলাই ইংল্যান্ড৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ