ইসলামাবাদ: একদিকে ভারতকে বারবার যুদ্ধের হুঁশুয়ারি দিচ্ছে পাকিস্তান। তার মধেই বৃহস্পতিবার নয়া মিসাইল পরীক্ষা করতে চলেছে ইসলামাবাদ। সপ্তাহ খানে আগেই একবার পরমাণু যুদ্ধের কথা বলতে শোনা গিয়েছিল পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে। এরপর গত ২৬ অগস্ট ফের একই হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

২৬ তারিখেই এই মিসাইল পরীক্ষার বিষয়ে ভারতকে জানিয়েছে পাকিস্তান। কারণ ২০০৫-এ এক বিশষ চুক্তি অনুযায়ী দুই দেশকেই পরীক্ষার তিন দিন আগেই বিষয়টা জানাতে হয়।

মিসাইল বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এদিন সম্ভবত গাজনভি মিসাইলের পৃইক্ষা করতে চলেছে পাকিস্তান, যার রেঞ্জ ৩০০ কিলোমিটার। বালোচিস্তানের সোনমিয়ানি ফ্লাইট টেস্ট রেঞ্জের ৫৯ কমান্ড পোস্ট থেকে নিক্ষেপ করা হবে মিসাইলটি।

এই মিসাইল পরীক্ষার জন্যই করাচি যাওয়ার তিনটি এয়ারস্পেস বন্ধ করা হয়েছে ২৮ থেকে ৩১ অগাস্ট। যেখানে এই টেস্ট হবে তার আশেপাশে জলপথেও জারি হয়েছে অ্যালার্ট। জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

গাজনভি হল পাকিস্তানের একটি শর্ট রেঞ্জ মিসাইল। পাকিস্তানের হাতে শাহিন ও গৌরি নামেও আরও দুটি এই ধরনের রেঞ্জের মিসাইল আছে।

উল্লেখ্য, বুধবার পাকিস্তানের রেলমন্ত্রী শেখ রসিদ আহমেদ বলেন পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে অক্টোবর বা নভেম্বর নাগাদ ভীষণ রকম যুদ্ধ শুরু হতে পারে। কাশ্মীর সমস্যার যদি সমাধান না হয় তাহলে বিষয়টা পারমানবিক যুদ্ধ অবধি যেতে পারেন এবং সেক্ষেত্রে ভারতকে বিপদের সম্মুখীন হতে হবে বলেও জানিয়েছেন ইমরানও।

স্বাধীনতার পর থেকে এখনও অবধি ১৯৬৫ ও ১৯৭১ যুদ্ধক্ষেত্রে মাঠে নামে এছাড়া ১৯৯৯ সালের কারগিল যুদ্ধ সব মিলিয়ে মোট ৩ বার পাকিস্তান ভারত যুদ্ধের ময়দানে মুখোমুখি হলেও পাকিস্তান কিন্তু এখনও জিততে পারে নি। তবে এবারে যদি যুদ্ধ হয় সেক্ষেত্রে ফলাফল অন্যরকম হবে বলেও হুঁশিয়ারী দিয়েছেন রসিদ।

যদিও ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পর থেকে পাকিস্তান শুরু থেকেই ভারতের বিরোধিতা করে আসছে এমনকি তারা বেআইনি বলেও এই কাজকে দাবি করেছে। যদিও দিল্লির তরফ থেকে জানানো হয়েছে এটা একেবারেই ভারতের অভ্যন্তরীন বিষয়।