নয়াদিল্লি: একদিকে কাশ্মীর। অন্যদিকে সিএএ। ভারতের একের পর এক আভ্যন্তরীণ ইস্যুতে বারবার গলা তুলছেন ইমরান খান। এই পরিস্থিতিতেই পাক প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হল ভারতে। সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশনের সামিটে যোগ দিতে ইমরানকে আমন্ত্রণ জানানো হবে বলে খবর।

বৃহস্পতিবার এমনটাই জানিয়েছে ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রক। এই প্রসঙ্গে ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র রবিশ কুমার বলেন, ‘‘৮ দেশ ও ৪ পর্যবেক্ষককে আমন্ত্রণ জানানো হবে’’।

এদিন সাংবাদিক বৈঠকে বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র বলেন, ‘‘রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যের (চিন) মাধ্যমে এ ইস্যুতে সওয়াল করেছিল পাকিস্তান। রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ জানিয়েছিল, এই ইস্যু নিয়ে আলোচনা সঠিক জায়গা নয় এটা। দ্বিপাক্ষিক আলোচনা করা উচিত’’।

কয়েকদিন আগেই মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচারের অভিযোগ তুলে ট্যুইট করেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। পরপর বেশ কয়েকটি ট্যুইট করে ভারতে সংখ্যালঘুদের অবস্থা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও RSS-এর বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়েছেন তিনি।

তাঁর কথায়, ‘মোদী সরকার ও RSS সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচারে মদত দিচ্ছে। এটা ওদের নীতি। আরএসএসের গুন্ডারা প্রকাশ্যেই সংখ্যালঘুদের গণপিটুনি দিচ্ছে। আর এই সব ঘটনায় মোদি সরকার শুধু সমর্থনই করছে না, বরং তাঁর সরকারের পুলিশ এ ধরনের ঘটনায় মদত দিচ্ছে।’