ইসলামাবাদ: ৯০ জন যাত্রী সহ বিমান ভেঙে পড়েছে পাকিস্তানে। করাচিতে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটেছে। এখনও পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যায়নি। তবে খবরটি নিশ্চিত করা হয়েছে পাকিস্তান এয়ারলাইনসের তরফ থেকে।

পিআইএ-র মুখপাত্র আব্দুল সাত্তার জানিয়েছেন, Flight 8303 বিমানটি লাহোর থেকে করাচির দিকে উড়ে যাচ্ছিল। করাচিতে অবতরণ করার ঠিক আগেই ভেঙে পড়ে সেটি।

স্থানীয়দের তোলা ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ঘটনাস্থল থেকে প্রচুর ধোঁয়া উঠছে। জনবসতি পূর্ণ এলাকায় বিমানটি ভেঙে পড়েছে কিনা, তা এখনও বোঝা যাচ্ছে না। তবে করাচির হাসপাতালগুলিতে এমার্জেন্সি জারি করেছেন সেদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

করাচিতে জিন্না ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের কাছে মডেল কলোনিতে ভেঙে পড়েছে বিমানটি।

উদ্ধারকাজের জন্য ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়েছে উদ্ধারকারী দল, রয়েছে অ্যাম্বুলেন্স। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তৎপরতার সঙ্গে উদ্ধারকাজ শুরু হয়েছে। পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে পাক আর্মির হেলিকপ্টারও পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত বছর এক ভয়াবহ বিমান দুর্ঘটনার হাত থেকে কোনোরকমে রক্ষা পেয়েছিল পাকিস্তানের একটি বিমান। গিলগিট এয়ারপোর্টে রানওয়েতে ছিটকে গিয়েছিল বিমানটি। যদিও কেউ হতাহত হননি।

২০১৬ তে পিআইএ-র একটি বিমান ভেঙে ৪৮ জন যাত্রীর মৃত্যু হয়েছিল।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।