নয়াদিল্লি: পাক-অধিকৃত কাশ্মীর আমাদের, সোমবার লোকসভা দাঁড়িয়ে এমনটাই বললেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল প্রসঙ্গে বিরোধিদের প্রশ্নের উত্তরের মাঝে এই মন্তব্য করেছেন তিনি।

এদিন শাহ বলেন, “পাক-অধিকৃত কাশ্মীর আমাদের, ওখানকার মানুষজনও আমাদের। আমরা আজও তাঁদের জন্য ২৪ টি আসন জম্মু ও কাশ্মীর বিধানসভায় সংরক্ষিত রেখেছি”।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের পক্ষে থাকতে বাংলার সাংসদদের আবেদন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের। সংবিধান মেনেই নাগরকিত্ব সংশোধনী বিল পেশ বলে দাবি শাহের। আজ সোমবার লোকসভায় বিল পেশ হতেই তুমুল হট্টগোল বাধে। বিলের বিরোধিতায় সরব হন কংগ্রেসের অধীর চৌধুরী থেকে শুরু করে বিরোধী দলের সাংসদরা। বিলের বিষয় নিয়ে তুমুল আপত্তি তোলেন সৌগত রায়। তৃণমূল নীতিগতভাবে বিলের বিরোধিতা করছে বলে লোকসভায় সওয়াল সৌগত রায়ের। ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন বর্ষীয়ান এই সাংসদ।

পশ্চিমবঙ্গ-সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান থেকে এসে বছরের পর বছর ধরে বাস করছেন বহু শরনার্থী। সেই শরনার্থীদের নাগরিকত্ব দিতেই নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বলে দাবি অমিত শাহের। এদিন বিল পেশের পরই বিরোধীদের আক্রমণ সামাল দিতে অমিত শাহ বলেন ‘নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল কারও অধিকার ছিনিয়ে নেবে না। বিলে ভেদাভেদ হচ্ছে বলে যদি কেউ প্রমাণ করতে পারেন, তাহলে এখনই এই বিল নিয়ে সংসদ ছেড়ে চলে যাব, এক শতাংশ সংখ্যালঘু বিরোধী নয় এই বিল। এই বিল পাশ হলে কারও স্বার্থ ক্ষুন্ন হবে না। ধর্মনিরপেক্ষতা স্বীকার করে কেন্দ্রীয় সরকার”।

বিলের স্বপক্ষে বলতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন ‘এক সময় বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দুদের এদেশে আশ্রয় দিয়েছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী। তবে এখন কেনও এই বিল পেশে বাধা দিচ্ছেন বিরোধীরা।’অমিত শাহের বক্তব্য চলাকালীনই নতুন করে ফের হট্টগোল শুরু হয় লোকসভায়। বিরোধী সাংসদদের শান্ত করতে চেষ্টার কসুর ছিল না লোকসভার অধ্যক্ষ ওম বিড়লার।