নয়াদিল্লি: এক সমীক্ষার খতিয়ানে ক্রমশ উদ্বেগ বাড়ছে৷ সমীক্ষা জানাচ্ছে, আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে পাকিস্তান বিশ্বের পঞ্চম বৃহৎ পরমাণু শক্তিধর দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে৷ বর্তমানে পাকিস্তানের কাছে ১৪০ থেকে ১৫০টি পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে বলে এক সমীক্ষাতে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য৷ আর সেই সমীক্ষাতে ধারণা করা হচ্ছে, পাকিস্তানের এই পরমাণু অস্ত্র ভান্ডার আগামীও ২০২৫ সালে ২২০-২৫০টির কাছাকাছি চলে যাবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউক্লিয়ার ইনফরমেশন প্রজেক্ট রিপোর্ট এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য দিচ্ছে৷ ওই রিপোর্ট অনুযায়ী ১৯৯৯ সালে একটি খতিয়ান পেশ করে জানিয়ে ছিল ২০২০ সালের মধ্যে ৬০-৮০টি পারমাণবিক অস্ত্র থাকবে পাকিস্তানের কাছে৷ সেই লক্ষ্যমাত্রার অনেক বেশি পরিমাণে অস্ত্র হাতে এসেছে পাকিস্তানের৷

গবেষক হ্যানস এম ক্রিসটেনসেন, রবার্ট এস নরিস ও জুলিয়া ডায়মণ্ড পাকিস্তানি নিউক্লিয়ার ফোর্স নামে এই রিপোর্ট তৈরি করেছেন৷ ফেডারেশন অফ আমেরিকান সায়েন্টিস্টের পক্ষ থেকে এই রিপোর্ট প্রকাশ করা হয় গত বছর।

রিপোর্ট বলছে দ্রুত হারে নিজেদের পারমানবিক অস্ত্র বাড়িয়ে চলেছে পাকিস্তান৷ এমনকী তারা সংরক্ষণও করছে এই পারমানবিক অস্ত্রের। এভাবে যদি চলতে থাকে তবে খুব তাড়াতাড়ি পাকিস্তানের হাতে থাকা পারমাণবিক অস্ত্রের সংখ্যা ২৫০ ছাড়িয়ে যাবে৷ স্বাভাবিকভাবেই রিপোর্ট ঘিরে যথেষ্ট চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন পাকিস্তান পারমানবিক অস্ত্রের উৎপাদন ও বৃদ্ধি ঘটাতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিচ্ছে৷ আগামী ১০ বছরে যা এই পরিমাণ আরও বাড়বে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে রিপোর্টে৷ উপগ্রহের চিত্র অনুযায়ী পাকিস্তান সেনা এবং বায়ুসেনা এই পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করার জন্য সম্ভার বাড়াচ্ছে৷ মূলত ভারতের পারমানবিক শক্তিকে ধ্বংস করতেই এই সম্ভার বাড়ানো হচ্ছে বলে সূত্রের খবর। ‌‌