বার্মিংহ্যাম: বৃষ্টির জন্য এক ঘণ্টা দেরিতে শুরু হয় ম্যাচ৷ মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়ায় স্যাঁতসেতে পিচে তবু টস জিতে ব্যাটিংয়ের চ্যালেঞ্জ নেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন৷ পেসারদের অনুকূল পরিবেশে এজবাস্টনের তাজা পিচে শুরুতেই আগুন ঝরান মহম্মদ আমের, শাহীন শাহ আফ্রিদিরা৷ বিশেষ করে টিন-এজার শাহীনের আগুনে বোলিংয়ে ঝলসে যায় কিউয়িদের টপ অর্ডার৷ তা সত্ত্বেও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে নিউজিল্যান্ড লড়াইয়ের রসদ জোগাড় করে নেয় জিমি নিশাম ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের দায়িত্বশীল পার্টনারশিপের সৌজন্যে৷

এক প্রান্ত আঁকড়ে নিশামের লড়াকু ইনিংসই নিউজিল্যান্ডকে দু’শোর গণ্ডি পার করায়৷ না হলে এক সময় ৮৩ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল ব্ল্যাক ক্যাপসরা৷ সেখান থেকে নির্ধারিত ৫০ ওভারে নিউজিল্যান্ড ৬ উইকেটে ২৩৭ রান তোলে৷ নিশ্চিত শতরানের দোরগোড়ায় থেমে যেতে হয় নিশামকে৷ অনবদ্য হাফসেঞ্চুরি করেন গ্র্যান্ডহোমও৷ হাফসেঞ্চুরি হাতছাড়া করলেও কেন উইলিয়ামসনের কার্যকরী ইনিংস নিউজিল্যান্ডকে প্রাথমিক বিপর্যয় থেকে উদ্ধার করতে কিছুটা হলেও সক্ষম হয়৷

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে বল করতে এসে মহম্মদ আমের প্রথম বলেই তুলে নেন মার্টিন গাপ্তিলের উইকেট৷ ৪ বলে ৫ রান করে প্লেড-অন হন গাপ্তিল৷ কলিন মুনরো ও রস টেলরকে এক ওভারের ব্যবধানে ফিরিয়ে দেন শাহীন৷ মুনরো ১৭ বলে ১২ রান করে হ্যারিস সোহেলের হাতে ধরা পড়েন৷ টেলর ৮ বলে ৩ রান করে সরফরাজের দস্তানাবন্দি হন৷

টম লাথাম ১৪ বলে ১ রান করে শাহীনের তৃতীয় শিকার হন৷ উইকেটের পিছেন তাঁর ক্যাচটিও দস্তানাবন্দি করেন সরফরাজ৷ কেন উইলিয়ামসন ৬৯ বলে ৪১ রান করে শাদব খানকে উইকেট দেন৷ গ্র্যান্ডহোমকে সঙ্গে নিয়ে নিশাম ষষ্ঠ উইকেটের জুটিতে ১৩২ রান যোগ করেন৷ বিশ্বকাপে ষষ্ঠ উইকেটে এটি নিউজিল্যান্ডের রেকর্ড পার্টনারশিপ৷

শেষে ৬টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৭১ বলে ৬৪ রান করে দূর্ভাগ্যজনক রানআউট হন গ্র্যান্ডহোম৷ মিচেল স্যান্টনারকে সঙ্গে নিয়ে জিমি নিশাম ইনিংসের শেষ পর্যন্ত ক্রিজে অতিবাহিত করেন৷ স্যান্টনার ৫ বলে ৫ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ নিশামকে থেমে যেতে হয় ব্যক্তিগত শতরান থেকে ৩ রান দূরে৷ ১১২ বলে ৯৭ রান করার পথে ৫টি চার ও ৩টি ছক্কা মারেন নিশাম৷

পাকিস্তানের হয়ে শাহিন আফ্রিদি ২৮ রানে ৩টি উইকেট নেন৷ মহম্মদ আমের ও শাদব খান নিয়েছেন ১টি করে উইকেট৷ ১০ ওভার হাত ঘুরিয়েও কোনও উইকেট পাননি ওয়াহাব রিয়াজ৷