ইসলামাবাদঃ  ফের একবার প্রকাশ্যে এল পাকিস্তানের মাটিতে সংখ্যালঘু নির্জাতনের ঘটনা। এক নাবালিকাকে অপহরণ করে ধর্মান্তকরণ করা হল। পাকিস্তানের সিদ্ধ প্রদেশে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনার পর নির্যাতিতাকে মহিলা নিরাপত্তা সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় ফের একবার প্রশ্নের মুখে পাকিস্তানের মাটিতে সংখ্যালঘু নিরাপত্তা?

প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী গত কয়েকদিন আগে সিন্ধের জেকোবাবাদ শহর থেকে এক নবম শ্রেণির ছাত্রীকে অপহরণ করা হয়। এক ব্যক্তি তাকে জোর করে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করতে বাধ্য করে বলে অভিযোগ। এমনকি ধর্মান্তরিত করার পর ওই ছাত্রীকে বিয়েও করে। এরপরেই স্থানীয় পুলিশের কাছে অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানান। শুধু তাই নয়, তাঁর মেয়ে যে নাবালিকা সে বিষয়েও প্রমাণ তুলে দেন পুলিশের কাছে। এরপরেই তদন্ত শুরু করে পুলিশ। গত মঙ্গবার আদালতে এই সংক্রান্ত শুনানি ছিল। শুনানিতে কিশোরীকে নিরাপত্তা সেন্টারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক। তার প্রকৃত বয়স জানতে চান্দকা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল ডাক্তারি পরীক্ষা করার নির্দেশ ও দেওয়া হয়েছে।

যদিও দোষ ঢাকতে ওই ছাত্রীকে দিয়ে একটি ভিডিও বানানো হয়েছে, এমনটাই অভিযোগ নাবালিকার পরিবারের। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির পাশে বসে রয়েছে সে। আর ভিডিওতে সে জানাচ্ছে, আমি স্বেচ্ছায় মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করেছি এবং এখন আমার নাম আলিজা। আমি স্বেচ্ছায় বিয়ে করেছি। কেউ আমাকে জোড় করেনি। নাবালিকার পরিবারের অভিযোগ, ভয় দেখিয়ে এবং মারধর করে ওই ভিডিও বানানো হয়েছে।

পাকিস্তানের মাটিতে বারবার আক্রান্ত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়। কিন্তু তা সত্ত্বেও পাকিস্তানে হিন্দুদের উপর অত্যাচার নিয়ে নিরব ইমরান খানের সরকার। এমনকি ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন কিংবা ৩৭০ নিয়ে প্রশ্ন তুললেও এই বিষয়ে একেবারেই স্পিকটি নট পাক সরকার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I