ম্যাঞ্চেস্টার: ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে একশোর বেশি রানের লিড নিল পাকিস্তান৷ প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের ৩২৬ রানের জবাবে ২১৯ রানে শেষ হয়ে যায় ইংল্যান্ড ইনিংস৷

প্রথম ইনিংসে ১০৭ রানের লিড নিয়েও দ্বিতীয় ইনিংসে শুরুটা অবশ্য ভালো হয়নি পাকিস্তানের৷ ৫০ রানের গণ্ডি টপকানোর আগেই তিন ব্যাটসম্যান প্যাভিলিয়নে ফিরে গিয়েছেন৷ এঁদের মধ্যে রয়েছেন প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরিকারী শান মাসুদ ও হাফ-সেঞ্চুরিকারী বাবর আজম৷ প্রথম ইনিংসে ১৫৬ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলা মাসুদ দ্বিতীয় ইনিংসে খাতা খোলার আগেই প্যাভিলিয়নে ফিরে যান৷ শূন্য রানে বাঁ-হাতি পাক ওপেনারের উইকেট নেন স্টুয়ার্ট ব্রড৷ এছাড়া বাবর আজম ব্যক্তিগত ৫ এবং আবিদ আলি ২০ রান করে আউট হন৷ মাত্র ৪৮ রানে তিন উইকেট হারায় পাকিস্তান৷

এর আগে পাক বোলারদের সামনে বিশেষ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেননি ইংল্যান্ড ব্যাটসম্যানরা৷ মাত্র একজন ইংরেজ ব্যাটসম্যান হাফ-সেঞ্চুরির গণ্ডি টপকেছেন৷ ইংল্যান্ড ইনিংসে সর্বোচ্চ ৬২ রান করেন ওলি পোপ৷ দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৮ রান এসেচে উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান জোস বাটলারের ব্যাট থেকে৷ ইংল্যান্ড ইনিংসের প্রথম চার ব্যাটসম্যানের কেউ ২০ রানের গণ্ডি টপকাতে পারেননি৷

ইংল্যান্ড ইনিংসে বড় ধাক্কা দেন ইয়াসির শাহ৷ ১৮ ওভার হাত ঘুরিয়ে ৬৬ রান খরচ করে ৪টি উইকেট তুলে নেন তিনি৷ এছাড়া মহম্মদ আব্বাস ও শাদাব খান দু’টি করে উইকেট নেন৷ প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানকে বড় রানের লিড এনে দেন বোলাররা৷

বৃহস্পতিবার অবশ্য ওল্ড ট্র্যাফোর্ড এক নজিরবিহীন ঘটনার সাক্ষী থাকে৷ ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট দলে জায়গা না-হলেও দ্বাদশ ব্যক্তি হিসেবে নিজের কর্তব্য পালন করেন প্রাক্তন পাক অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। দ্বাদশ ব্যক্তি হিসেবে শাদাব খানের জুতো জোড়া মাঠে বয়ে নিয়ে আসতে দেখা যায় প্রাক্তন অধিনায়ককে। এরপর জলের বোতলও বয়ে নিয়ে আসেন তিনি। নিয়ম মেনে সবকিছু ঘটলেও এই ঘটনা দেশের প্রাক্তন অধিনায়ক সরফরাজের জন্য ভীষণ ‘অসম্মানজনক’ বলে টিম ম্যানেজমেন্টের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন শোয়েব আখতার।

দেশের একটি টেলিভিশন চ্যানেলে আলোচনা সভায় রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস জানিয়েছেন, প্রাক্তন অধিনায়ককে দিয়ে দলের অন্য ক্রিকেটারদের জুতো বওয়ানো একেবারেই উচিৎ নয়। ঘটনায় সরফরাজকে ‘ভীতু’ বলেও সম্বোধন করেছেন জাতীয় দলের প্রাক্তন পেসার। শোয়েব বলেন, ভীতু হওয়ার জন্যেই পাকিস্তান কোচ মিকি আর্থার সবসময় সরফরাজের মাথার উপর ছড়ি ঘুরিয়ে এসেছে। তিনি বলেন, ‘ছবিটা আমার মোটেই ভালোলাগেনি। দেশের প্রাক্তন অধিনায়ক যে কীনা কয়েকবছর আগে দেশকে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি দিয়েছে তাঁর সঙ্গে এমনটা কখনোই করা উচিৎ নয়। তোমরা ওকে দিয়ে জুতো বওয়ালে। ওটা যদি ও নিজে থেকে করতে চায় তাহলেও ওকে থামানো উচিৎ। ওয়াসিম আক্রাম কখনও আমার জন্য জুতো বয়ে আনেননি।’

শোয়েব আরও বলেন, ‘এই ঘটনা প্রমাণ করে সরফরাজ একজন দুর্বল মানুষ। আর সেই কারণেই মিকি আর্থার সবসময় ওর উপর প্রভাব খাটাতো। আমি কাছে ক্রিকেটারদের জন্য জুতো বয়ে আনার বিষয়টা কোনও সমস্যার নয়। কিন্তু প্রাক্তন অধনায়ক এটা কখনোই করতে পারেন না।’ ঘটনায় আখতারকে সমর্থন করেছেন ওই টেলিভিশন চ্যানেলের আরেক প্যানেলিস্ট তথা প্রাক্তন অধিনায়ক রশিদ লতিফও। যদিও ঘটনায় বিতর্কের অবকাশ থাকায় ড্যামেজ কন্ট্রোলে নামেন পাক কোচ মিসবা উল-হক।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।