ইসলামাবাদ: কিছুদিন আগেই জম্মু-কাশ্মীরে ১০ হাজার সেনা পাঠিয়েছিল কেন্দ্র৷ আর সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই ফের ২৮হাজার জওয়ানকে কাশ্মীরের মোতায়েন করল কেন্দ্র৷ পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেন, ‘ভারত যুদ্ধ মনোভাব দুশ্চিন্তা করার মতো৷ ১০ হাজার সেনা কাশ্মীরে পাঠিয়েছে ভারত৷ ভারত মানবাধিকারের লঙ্ঘন করছে৷ পাকিস্তান এই ইস্যুকে বিশ্বের সামনে তুলে ধরবে৷’

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবারই কাশ্মীরে ১০০ অতিরিক্ত কোম্পানি সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, সিআরপিএফের ৫০, বিএসএফের ১০, এসএসবি-র ৩০ এবং আইটিবিপির ১০ কোম্পানি মোতায়েন করা হবে৷ আর এই বিষয় নিয়েই প্রশ্ন তোলেন জম্মু-কাশ্মীর পিপলস মুভমেন্ট (জেকেপিএম) দলের প্রধান তথা প্রাক্তন আইএএস আধিকারিক শাহ ফয়জল৷ তিনি ট্যুইট করে জানান, কেউ এ সম্পর্কে কিছু জানে না৷ তাহলে কী আর্টিকল ৩৫এ সংক্রান্ত কোনও বিষয়৷ বড় কিছু ঘটতে চলেছে কী, সেই প্রশ্নকেও উসকে দেন তিনি৷

আর এর এক সপ্তাহের মধ্যে ফের কাশ্মীরে অতিরিক্ত ২৮হাজার সেনা পাঠাল কেন্দ্র৷ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে জানা গিয়েছে, কাশ্মীর উপত্যকায় ২৮০ কোম্পানির সিকিওরিটি ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে৷ এই নিরাপত্তা আধিকারিকরা বেশিরভাগই সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের৷ তাদের কাশ্মীরের বিভিন্ন প্রান্ত এবং শ্রীনগরে মোতায়েন করা হয়েছে৷

এদিকে পাক সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, বুধবার পাক বিদেশমন্ত্রকে জম্মু-কাশ্মীর ইস্যুতে পাঁচটি বৈঠকের পর কুরেশি ভারতের সাম্প্রতিক এই পদক্ষেপ নিয়ে প্রশ্ন তুলে দেন৷