ইসলামাবাদ: আন্তর্জাতিক আদালতে ফের মুখ পুড়ল পাকিস্তানের৷ আন্তর্জাতিক আদালতে পাকিস্তানের আইনজীবী খাওয়ার কুরেশির স্বীকারোক্তিতে স্পষ্টতই অস্বস্তিতে পাক প্রশাসন৷ এদিন পাক আইনজীবী জানিয়ে দেন কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার ইস্যুতে বিরোধিতার জন্য সেভাবে কোনও তথ্যপ্রমাণই ছিল না পাকিস্তানের কাছে৷

কুরেশি জানান আন্তর্জাতিক আদালতে পেশ করার জন্য পাকিস্তানের কাছে সেভাবে কোনও তথ্য প্রমাণই ছিল না, যা দিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে লড়া যায়৷ আর তথ্য প্রমাণ না থাকায় পাকিস্তানের পক্ষে ভারতের বিরুদ্ধে জেতা সম্ভব ছিল না৷ পাকিস্তান আন্তর্জাতিক আদালতে ভারতের বিরুদ্ধে সুর চড়া করেছিল৷ রাষ্ট্রসংঘেও একাধিকবার চিনকে পাশে নিয়ে কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার ইস্যুতে সরব হয়৷ কিন্তু খুব একটা সুবিধা করে উঠতে পারেনি৷

এই ইস্যুতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গেও কথা বলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷ ভারতের বিরুদ্ধে সেখানেও সুর চড়ান তিনি৷ তবে লাভ হয়নি৷ পরে চিনকে সঙ্গে করে রাষ্ট্রসংঘের দ্বারস্থ হলে রুদ্ধদ্বার বৈঠক ডাকা হয়৷ সেখানে ভারত পরিষ্কার জানিয়ে দেয় কাশ্মীর সমস্যা ভারতের একেবারেই অভ্যন্তরীণ ইস্যু৷ এব্যাপারে কোনও দ্বিতীয় পক্ষের কথা শুনতে রাজি নয় নয়াদিল্লি৷

সম্প্রতি ফ্রান্সে জি-৭ সম্মেলনের সাইডলাইনে বৈঠকে বসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ সেখানে প্রধানমন্ত্রী মোদীর কথায় সম্মত হন ট্রাম্প৷ জানিয়ে দেন ভারতের পাসেই রয়েছেন তিনি৷ তবে তার আগে কাশ্মীর ইস্যুতে ট্রাম্পের মধ্যস্ততা করা প্রসঙ্গে সাফ মানা করে দেয় ভারত৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে জানিয়ে দেওয়া হয় কোনও তৃতীয় পক্ষের খবরদারি মানবে না নয়াদিল্লি৷