ইসলামাবাদ: পাকিস্তান আছে পাকিস্তানেই। স্বভাবে বিন্দুমাত্র বদল নেই পাক সরকারের। পাক গোয়েন্দা সংস্থা FIA সে দেশের মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গিদের যে তালিকা প্রকাশ করেছে তাতে নাম নেই ২৬/১১ মুম্বই হামলার মূল চক্রীদের। ভারতের দাবি, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই মুম্বই হামলার মূল ষড়যন্ত্রকারীদের নাম ওই জঙ্গি তালিকায় রাখেনি ইসলামাবাদ।

২৬/১১ মুম্বই হামলার বিষয়ে পাকিস্তানকে বিস্তারিত তথ্য দিয়েছিল ভারত। পাক মাটিতে কোথায় বসে হামলার ছক কষা হয়, কারা কারা এই বর্বরতম হামলার ষড়যন্ত্র করেছিল সব তথ্যই ইসলামাবাদকে পাঠায় দিল্লি।

ভারতের দাবি, পাকিস্তানের কাছেও মুম্বই হামলা সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য রয়েছে। তবুও সেই হামলার পর এক দশকের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও দোষীদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করেনি পাকিস্তান। ২৬/১১ মুম্বই হামলায় নিহত হয়েছিলেন মোট ১৫টি দেশের ১৬৬ জন নাগরিক।

imran khan

পাক গোয়েন্দা সংস্থা FIA সে দেশের মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গিদের যে তালিকা প্রকাশ করেছে তাতে নাম নেই ২৬/১১ মুম্বই হামলার প্রধান ষড়যন্ত্রকারীদের। এপ্রসঙ্গে ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, পাকিস্তানের কাছে সব তথ্য থাকলেও ইচ্ছাকৃতভাবেই ২৬/১১ মুম্বই হামলার সঙ্গে যুক্ত জঙ্গি নেতাদের নাম তালিকায় রাখেনি ইসলামাবাদ।

জানা গিয়েছে, পাকিস্তানের তৈরি ওই জঙ্গি তালিকায় নাম রয়েছে মুলতানের মহম্মদ আমজাদ খানের। মুম্বইয়ে হামলা চালাতে যে বোটটি করে পাকিস্তান থেকে জঙ্গিরা ভারতে এসেছিল সেই বোটটি কেনার সঙ্গে যুক্ত ছিল আমজাদ। এছাড়াও আরও বেশ কয়েকজন জঙ্গির নাম রয়েছে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থার তৈরি ওই তালিকায়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I