নয়াদিল্লি: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন পাকিস্তান জঙ্গিদের কাছে স্বর্গরাজ্য৷ প্রতিবেশী এই দেশে সন্ত্রাসের জাল কতদূর ছড়িয়েছে তার প্রমাণ মেলে বারবার৷ আয়তন, জনসংখ্যা সব দিক থেকে ভারতের থেকে ছোট এবং পিছিয়ে থাকা দেশ পাকিস্তানে এখনও অবধি ৬৯টি সংগঠনকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সেদেশের সরকার৷ সেই তালিকায় আছে হাফিজ সইদের জামাত-উদ-দাওয়ার মতো সংগঠন৷

অপরদিকে ভারতে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনের তালিকায় রয়েছে ৪১টি সংগঠনের নাম৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের একটি সূত্র জানাচ্ছে এদের মধ্যে অর্ধেক সংগঠন মদত পায় পাকিস্তানের নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনগুলি থেকে৷ হয় এই জঙ্গি সংগঠনগুলির মূল ঘাঁটি পাকিস্তানে৷ নতুবা জঙ্গি সংগঠনগুলির মূল চাঁই পাকিস্তানে বসে অপারেশন চালায় এবং আর্থিকভাবে ভারতের সংগঠনগুলিকে মদত দেয়৷ পাকিস্তানের ন্যাশনাল কাউন্টার টেররিজম অথরিটি অনুযায়ী ৬৯ জঙ্গি সংগঠনগুলির অধিকাংশ বালোচিস্তান, গিলগিট-বালতিস্তান ও ফেডেরালি অ্যাডমিনিস্টারড ট্রাইবাল এরিয়া বসে গোটা বিশ্বে অপারেশন পরিচালনা করে৷

পুলওয়ামার হামলার পর আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়ে পাকিস্তান মুম্বই হামলার মাস্টারমাইন্ড হাফিজ সইদের সংগঠন জামাত-উদ-দাওয়ারের মতো সংগঠনকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে৷ এই সংগঠনের চ্যারিটি শাখা ফালাহ-ই-ইনসানিয়ত ফাউন্ডেশনকেও নিষিদ্ধ করা হয়েছে৷ অথচ ভারতের জম্মু কাশ্মীরে সক্রিয় জঙ্গি সংগঠনগুলি যেমন হিজবুল-ই-মুজাহিদিন, অল বদর, হরকত-উল-মুজাহিদিন, দুখতারান-ই-মিল্লত ইত্যাদি সংগঠনগুলির বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি পাক সরকার৷ জইশ-ই-মহম্মদ ও লস্কর-ই-তইবার মতো সংগঠনকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলেও মাসুজ আজহার ও হাফিজ সইদকে পাকিস্তানে স্বাধীনভাবে ঘুরতে দেখা যায়৷