Gfx- মিতুল দাস

ইসলামাবাদ: পালটায়নি পাকিস্তান৷ মুখে এক, কাজে আরেক৷ সন্ত্রাসবাদী বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে যে ইসলামাবাদ সংযোগ রেখে চলছে তা আবারও স্পষ্ট করলেন পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি৷ এক বিদেশী সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়ে দিলেন, পাক প্রশাসন যোগাযোগ রেখে চলেছে জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদের সঙ্গে৷

আরও পড়ুন: F-16 ব্যবহারের কথা কেন বারবার অস্বীকার করছে পাকিস্তান

সন্ত্রাসে মদতদাতা পাকিস্তান৷ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের থেকেই অপবাদ হজম করতে হয়েছে পাকিস্তানকে৷ কিন্তু তাতে কোনও ফারাক হয়নি৷ উলটে চিনের প্রত্যক্ষ আশকাড়ায় সন্ত্রাসীদের সাহায্য বাড়ায় ইসলামাবাদ৷ জঙ্গিদের সাহায্যেই প্রতিবেশী ভারতের বিরুদ্ধে চলে চোরাগোপ্তা আক্রমণ৷ যার সাম্প্রতিক উদাহরণ পুলওয়ামা হামলা৷ এরপরই ভারতের তরফে করা হয় প্রত্যাঘাত৷ দিশেহারা পাকিস্তান৷ আন্তর্জাতিক আঙিনাতেও কোণঠাসা হয়ে পড়ে ইমরানের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান৷

নানা চাপের কাছে নতি মেনে এরপর শান্তির কথা বলে তারা৷ কিন্তু তাদের মনোভাব যে পালটানোর নয় তা শাক্রবারই স্পষ্ট হয়ে যায়৷ সেদিন শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেছিলেন, জইশ-ই-মহম্মদ প্রধান মাসুদ আজহার বার্তমানে খুবই অসুস্থ৷ তিনি ভরতি হাসপাতালে৷ এরপর এদিন সাক্ষাৎকারে আরও বিস্ফোরক ইঙ্গিত দেন পাক বিদেশমন্ত্রী৷

শাহ মেহমুদ কুরেশী জানান, পাক সরকার জইশের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেছে৷ এরপরই তাঁকে জিজ্ঞাসা করা হয় দলের বা সরকারের তরফে কোন নেতৃত্ব মাসুদের সঙ্গে সম্পর্ক রেকে চলেছে? সেই সময় কুরেশি বলেন, তাদের কিছু মানুষ মাসুদের সম্পর্কে জানেন৷ তার ভিত্তিতেই এই কথা বলেছেন তিনি৷ এরপরই তাঁর যুক্তি, ‘‘পুলওয়ামা ঘটনার জন্য জইশ-ই-মহম্মদ দায় স্বীকার করেনি৷’’

তাহলে পুলওয়ামা হামলার আত্মঘাতী জঙ্গি আদিল মহম্মদ দারের যে অডিও প্রকাশ হয়েছিল তা কী মিথ্যে? এই প্রশ্নের উত্তরের পাক বিদেশমন্ত্রীর দাবি, নানা মহল থেকে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে৷ জৈশ এখনও একবারও পুলওয়া ঘটনার দায় স্বীকার করেনি৷ উলটে দায় ঝেড়ে ফেলেছে তারা৷ তবে কী, ভারতের দাবিকে নস্যাৎ করতেই কুরেশির এই মন্তব্য? জল্পনা নানা মহলে৷

আরও পড়ুন: পাকিস্তানে এয়ার স্ট্রাইক কি আদৌও হয়েছে? প্রশ্ন নব্য তৃণমূলী মৌসমের

পুলওয়ামাকাণ্ডের পর পাকিস্তান জানিয়েছিল, সন্ত্রাসের পেচে জৈশ যোগের প্রমাণ দিলে কড়া পদক্ষেপ করবে তারা৷ ঘটনা বেশ কয়েকদিন পর ডয়েশিয়ার দেওয়া হয় প্রতিবেশী দেশকে৷ তাতেও অবস্থা যে-কে সেই৷ আন্তর্জাতিক রাজনীতির বিশ্লেষকদের মতে, ইসলামাবাদের দখল নির্ভর করে সেদেশের সেনা ও জঙ্গিদের সহযোগিতার উপর৷ ফলে একদিকে বিশ্ব আঙিনায় ভারতের দাবিকে মান্যতা না দেওয়া, অন্যদিকে, দেশে মসনদ বাঁচাতেই কুরেশীর এই অনড় অবস্থান৷ পরিস্থিতি বিচারে তাই আবারও স্পষ্ট, সন্ত্রাস বিরোধী লড়াইয়ে পাক পদক্ষেপ আসলে সোনার পাথর-বাটি৷ জইশের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে পাকিস্তান সরকার: কুরেশি