শ্রীনগর: পাকিস্তানের হেভি শেলিংয়ে শহিদ হলেন এক ভারতীয় জওয়ান৷ জম্মু কাশ্মীরের রাজৌরি জেলায় শুক্রবার সকালে পাকিস্তানের হেভি শেলিং শুরু হয়৷ পালটা জবাব দেয় ভারতীয় সেনাও৷ কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি৷ এক ভারতীয় সেনা জওয়ান গুরুতর আহত হন৷ পরে হাসপাতালে মারা যান তিনি৷

শুক্রবার সকালেই শুধু নয়, পাক রেঞ্জার্স বিনা প্ররোচনায় গুলি ছুঁড়তে শুরু করে বৃহস্পতিবার রাত থেকেই৷ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সীমান্ত৷ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে জম্মু কাশ্মীরের রাজৌরিতে সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন করে পাক সেনা৷

আরও পড়ুন : মুখ পুড়ল পাকিস্তানের, পাক বন্ধু চিনকেও কড়া ধমক রাষ্ট্রসংঘের

অভিযোগ, কোনও প্ররোচনা ছাড়াই এলওসি’র ওপার থেকে হেভি শেলিং করতে শুরু করে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। যদিও কিছু মুহূর্তের মধ্যেই পালটা পাকিস্তান সেনাকে জবাব দেয় ভারতও৷ দুপক্ষের গোলাগুলিতে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয় সীমান্তে।

সুন্দরবনির রাজৌরি সেক্টরে আচমকা সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন করতে শুরু করে পাক সেনা৷ ভারতের সেনা ছাউনি লক্ষ্য করে হেভি শেলিং শুরু করে৷ জবাব দিতে ময়দানে নামে ভারতের জওয়ানরা৷ পাকিস্তানের দিকে দ্বিগুণ শক্তিতে আক্রমণ করে৷ শুরু হয় ক্রস বর্ডার ফায়ারিং৷

এদিকে ভারতীয় সেনা সূত্রে খবর, সংঘর্ষবিরতির ক্ষেত্রে পাকিস্তান এমন সব অস্ত্র ব্যবহার করছে যা সাধারণত যুদ্ধে ব্যবহার করা হয়৷ এবং সেনাছাউনি কম, সীমান্ত লাগোয়া বসতি এলাকাগুলি লক্ষ্য করে হেভি শেলিং করছে পাক সেনা৷ ফলে নিরীহ মানুষের প্রাণ যাচ্ছে৷ ক্ষয়ক্ষতির বহর বাড়ছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।