ইসলামাবাদ : বালোচিস্তান এলাকায় চিনা দম্পতির মৃত্যুর কথা প্রকাশ করল পাকিস্তান৷ এবছরের গোড়ার দিকে বালোচিস্তানে এক দম্পতির মৃত্যু হয়েছিল৷ তাদের ডিএনএ টেস্ট করে সম্প্রতি এই তথ্য প্রকাশ করেছে পাকিস্তান৷

পাকিস্তান সরকারের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে৷ সেখানে জানানো হয়েছে, “পাকিস্তান সরকার সন্ত্রাসবাদের এই নিষ্ঠুর আচরণে গভীর শোক প্রকাশ করেছে৷” ইসলামিক স্টেট ইতিমধ্যেই এই হত্যার দায় স্বীকার করে নিয়েছে৷ আরবি ভাষায় তাদের নিউজ এজেন্সিকে এখবর জানিয়েছে৷

আরও পড়ুন : হারিয়ে যাওয়া পাকিস্তানি বন্দরে সিল্ক রোড বানাবে চিন

২৪ মে জিন্না শহরের কুয়েত্তা এলাকা থেকে অপহরণ করা হয় লি জিং ইয়াং (২৪) ও মেং লি সি (২৬)-কে৷ জুন মাসে তাদের হত্যা করা হয়৷ রিপোর্টে প্রকাশ তাদের সঙ্গে আরও এক চিনা মহিলা ছিলেন৷ তিনি পালিয়ে যেতে সক্ষম হন৷

আরও পড়ুন : পাকিস্তান ও চিনের উপর নজরদারি চালাতে আসছে নতুন সরঞ্জাম

পাকিস্তানের সঙ্গে চিনের সম্পর্ক ইদানিং বেশ ভালো৷ সম্প্রতি পাকিস্তানে প্রচুর প্রজেক্টে টাকা ঢেলেছে চিন৷ চিনের সাহায্যে নিউক্লিয়ার প্ল্যান্ট অবশেষে হাতে পেল পাকিস্তান। পাঞ্জাব প্রদেশের মিয়ানওয়ালি জেলার বিশাল এলাকাজুড়ে এই প্ল্যান্ট তৈরি হয়েছে। এই প্রকল্প কাজ শুরু হওয়াতে চিনের প্রতি বন্ধুত্ব আরও শক্তিশালী করল পাকিস্তান। চিনের দৌলতে প্রথম মেট্রো ছুটল পাকিস্তানে৷ বিতর্কিত প্রজেক্ট চায়না পাকিস্তান ইকোনমিক করিডোরের আওতায় মেট্রোনির্মাণ প্রকল্পটি হয়৷ পাকিস্তানের লাহোর শহর প্রথম স্বাদ পেল মেট্রোর৷ বেজিং থেকে কয়েক হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগ হতে চলেছে পাকিস্তানে৷ দু’দেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত হয় ২০টি চুক্তি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।