ইসলামাবাদঃ নতুন করে গত কয়েকদিন ধরে ফের উত্তপ্ত ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত। লাগাতার সীমান্ত এলাকায় ভারতীয় সেনা ছাউনি টার্গেট করে শেলিং চালিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান। কড়া ভাষায় পাকিস্তানকে জবাব দিচ্ছে ভারতীয় সেনাবাহিনীও। একটা গুলি চালালে পাকিস্তানকে একেবারে খোলা হাতে জবাব দেওয়ার জন্যে ইতিমধ্যে সেনাবাহিনীকে সবুজ সঙ্কেত দিয়ে রেখেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

আর সেই মতো পাকিস্তানকে কড়া ভাষায় জবাব দিচ্ছে ভারতীয় সেনা। সেই মতো শনিবার পাকিস্তানকে আরও একবার কড়া ভাষায় জবাব দেয় ভারতীয় সেনাবাহিনী। ভারতের পালটা জবাবে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে পাকিস্তানের এক সংবাদমাধ্যমে দাবি করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, খতম হয়েছে তিন পাকসেনা জওয়ানকেও। আর তাতেই ঘুম উড়েছে ইসলামাবাদের।

এরপরেই পাকিস্তানে নিযুক্ত ভারতীয় ডেপুটি হাই কমিশনার গৌরব আহলুওয়ালিয়াকে তলব করে পাক বিদেশমন্ত্রক। পাক বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র ড, মোহম্মদ ফয়সালের তাঁর সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ বৈঠক করেন। জানা গিয়েছে, সেই বৈঠকে ভারতকে পাকিস্তানকে টার্গেট করে শেলিং না করার জন্যে ভারতীয় ডেপুটি হাই কমিশনারের কাছে আবেদন জানান।

ভারতীয় সেনাবাহিনীর তরফে জানা গিয়েছে, গত কয়েকদিন ধরে পুঞ্চ, রাজৌরি সহ একাধিক সেক্টরে একেবারে বিনা প্ররোচনাতে সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে আসছিল পাকিস্তান সেনা। পালটা জবাব দিয়েছে ভারতও। ভারতীয় সেনাবাহিনীর জবাবে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর জওয়ান মানজুর আব্বাসীর মৃত্যু হয়েছে বলে স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে পাকিস্তানের তরফে। ভারতীয় সেনার দাবি, পাকিস্তান লাগাতার সীমান্ত সংলগ্ন গ্রামগুলিকে টার্গেট করে আসছিল। সাধারণ মানুষকে লক্ষ্য করে গুলি বর্ষন চালাচ্ছিল। পালটা জবাবে সীমান্তের ওপারে ক্ষতি হয়েছে বলে জানানো হয়েছে সেনাবাহিনীর তরফে।

লাগাতার সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘনের পর সেনাবাহিনীতে হাই-অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। কারণ,পাকিস্তান সবসময় সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি আড়ালে সীমান্ত পার করে ভারতে জঙ্গি অনুপ্রবেশ ঘটায়। আর সেই কারণে পাকিস্তান সেনার শেলিংয়ের পরেই চরম সতর্কতা দেওয়া থাকে। সেই মতো রেড অ্যালার্ট জারি রয়েছে সেনাবাহিনীতে। পাশাপাশি পাক সেনার যে কোনও প্ররোচনার জবাব দেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।