প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: কাশ্মীর সহ ভারতের বিভিন্ন অংশে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ চালিয়ে যেতে বানিজ্য থেকে অর্জিত অর্থই সম্বল করেছে জঙ্গিরা। নিরাপত্তা বাহিনী সূত্রে উঠে এসেছে এমনই তথ্য। বুধবার নিরাপত্তা বাহিনী সূত্রে দাবি করা হয়েছে, তাঁরা জম্মু কাশ্মীর থেকে ৯ জন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করেছে, যারা নিয়ন্ত্রণ সীমায় ব্যবসা ফেঁদে বসেছে।

এদিকে, সুত্র বলছে ওই সমস্ত বেনিয়ারা পাক মদতপুষ্ট। এমনকি, পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন আইএসআই-এর নেপথ্য রয়েছে। তাদের সমর্থনেই ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে তারা। সূত্র আরও বলছে, কাশ্মীর সহ ভারতের বিভিন্ন অংশে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ চালিয়ে যেতে বানিজ্য থেকে অর্জিত অর্থকে সম্বল করেছে জঙ্গিরা।

যে ৯ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছে তারা হলেন, মেহেরাজুদ্দিন ভাট, নাজির আহমেদ ভাট, বারসাত আহমেদ ভাট, সউকত আহমেদ, নুর মহম্মদ, খুরসিদ, ইমতিয়াজ আহমেদ, আমীর এবং ইজাজ রহমানি। বৃহস্পতিবার ভারত সরকার জানিয়ে দিয়েছে, নিয়ন্ত্রণ সীমা বরাবর সমস্ত বানিজ্য সাময়িক সময়ের জন্য স্থগিত করে দেওয়া হবে। পাকিস্তান বলেছে, পাকিস্তান ভিত্তিক দুর্বৃত্তরা অস্ত্র, মাদকদ্রব্য ও জাল টাকা ভারতে ঢুকতে সাহায্য করছে।

নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বলেন, নিয়ন্ত্রন সীমায় কিছু পাকিস্তানি জঙ্গি ব্যবসায় ছাড়পত্র অপব্যবহার করছে। এনআইএর কয়েকটি মামলার তদন্তে জানা গেছে, সন্ত্রাসীদের সাথে যুক্ত ব্যক্তিরা ব্যবসা পরিচালনা করছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.