লাহোর: সৌরভের নতুন বিসিসিআই সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার খবর শুধু ভারতীয় ক্রিকেটমহলেই নয়, আলোড়ন ফেলেছে গোটা ক্রিকেটবিশ্বেই। বিশেষ করে প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান ভারতীয় বোর্ডের এই পালাবদলে নজর রাখছে আগাগোড়া। বিসিসিআই-এর নেতৃত্ব বদলে যদি ভারত-পাক দ্বি-পাক্ষিক ক্রিকেটীয় সম্পর্কে উন্নতি ঘটে, সেই আশায় বুক বাঁধছে পিসিবি।

পাকিস্তানের সেই আশা কতটা বাস্তবে রূপ পাবে সে সম্পর্কে ঘোর সংশয় রয়েছে। তবে প্রাক্তন পাক তারকা শোয়েব আখতার সৌরভের বিসিসিআই সভাপতি হওয়ার সিদ্ধান্তকে যথাযথ বলে মনে করছেন। পাক স্পিডস্টারের মতে, ক্যাপ্টেন হিসেবে সৌরভ টিম ইন্ডিয়ার মানসিকতাই বদলে দিয়েছিল। এবার প্রশাসক হিসেবেও কঠিন সময়ে ভারতীয় ক্রিকেটকে সঠিক পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে বলেই বিশ্বাস আখতারের।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এক ভিডিও বার্তায় আখতার সমর্থন করেন সৌরভের বোর্ড সভাপতি নির্বাচিত হওয়াকে। একদা সৌরভের নেতৃত্বে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে আইপিএল খেলা আখতার বলেন, ‘সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এমন একজন ব্যক্তি, যে কিনা ভারতীয় ক্রিকেটকে পুরোপুরি বদলে দিয়েছে। ১৯৯৭-৯৮’এর আগে কখন ভাবা যায়নি ভারত পাকিস্তানকে হারাতে পারে বলে। সৌরভ ক্যাপ্টেন হওয়ার আগে পর্যন্ত আমার কখনও মনে হয়নি পাকিস্তানকে হারানোর মতো ভারতীয় ক্রিকেটের গঠনতন্ত্র ছিল বলে। ভারতীয় ক্রিকেটের মানসিকতাটাই বদলে দিয়েছে সৌরভ। দেশের হয়ে খেলার জন্য উপযুক্ত প্রতিভা খুঁজে বার করার মতো যথাযথ চোখ ছিল সৌরভের।’

আরও পড়ুন – বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ড্র, বিশ্বকাপের স্বপ্ন আরও কঠিন হল সুনীলদের

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে আখতার আরও বলেন, ‘সৌরভ একজন অসাধারণ নেতা। প্রতিভা খুঁজে বার করার ক্ষেত্রে ও অত্যন্ত সৎ। ওর ক্রিকেটীয় জ্ঞান অপরিসীম।’

শুধু আখতার নয়, বেশকিছু প্রাক্তন ভারতীয় তারকাও সৌরভকে বিসিসিআই সভাপতি পদে স্বাগত জানিয়েছেন। লক্ষ্মণ, সেহওয়াগ, হরভজন সিংয়ের মতো সৌরভের প্রাক্তন সতীর্থরা মনে করেন যে, এমন পরিস্থিতিতে ভারতীয় ক্রিকেটকে প্রশাসক হিসেবে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে কেবল সৌরভই। অবশ্য বিসিসিআই সভাপতি হওয়ার পর সৌরভের উদ্দেশে শুভেচ্ছাবার্তা আসছে সমাজের সব মহল থেকেই।

বোর্ড সভাপতি হওয়ার পর মঙ্গলবারই প্রথমবার শহরে ফেরেন সৌরভ। বিমানবন্দরে সৌরভকে স্বাগত জানাতে হাজির ছিল বিপুল সংখ্যক অনুরাগী। বিমানবন্দর থেকে সিএবি পর্যন্ত সৌরভের ফেরার পথে গোটা রাস্তাটা ছিল কার্যত অবরুদ্ধ। সৌরভ বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হাওয়ায় সিএবি’র অন্দরমহলে কার্যত উৎসবের আবহ। ফুল ও আলোয় সাজানো ইডেনের ক্লাব হাউসে সৌরভ পা রাখার পর এক প্রস্থ সেলিব্রেশন হয়ে যায়। কেক কেটে সিএবি কর্তাদের অভিনন্দন বার্তা প্রসন্ন চিত্তে গ্রহণ করেন মহারাজ।