কলকাতা: বিসিসিআই সভাপতি জগমোহন ডালমিয়ার সঙ্গে বৈঠকের আগেই বিপত্তি! দমদম বিমানবন্দরে আটক হলেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান শাহরিয়ার খান৷আটকের কারণ ভিসা সমস্যা৷ জানা গিয়েছে ইমিগ্রেশনের কাগজ-পত্র ঠিকমতো না থাকার জন্যই পিসিবি চেয়ারম্যানকে আটক করা হয়েছে৷ রবিবার দুপুর তিনটের সময় কলকাতার এক অভিযাত হোটেলে ডালমিয়ার সঙ্গে শাহরিয়ার খানের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হওয়ার কথা ছিল ৷ এভাবে আটকের পরে ওই বৈঠক নিয়ে ঘোর অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে৷

এবার দেখা যাক শাহরিয়ারের সঙ্গে কী কী ইস্যুতে বৈঠক হওয়ার কথা ছিোল ডালমিয়ার৷ বিবিসিআই সভাপতি হওয়ার পরেই ফের ভারত-পাক সিরিজ চালু করার আগ্রহ দেখিয়েছিলেন ডালমিয়া৷ পাক বোর্ডও আগ্রহী ফের ভারত-পাক সিরিজ চালু করার৷ মূলত ডালমিয়া-শাহরিয়ারের রবিবারের বৈঠকের প্রথম এজেন্ডা ভারত-পাক সিরিজ৷ রবিবারের বৈঠকের পরে ওই সিরিজ নিয়ে জট খুলে যেতে পারে বলেও মনে করছে ক্রিকেট মহল৷ পাশাপাশি রবিবারের বৈঠকের দু-নম্বর ইস্যু আগামী নবম আইপিএলে পাক ক্রিকেটারদের অংশগ্রহণ৷আইপিএলের প্রথম দিকে সোয়েব আখতার-হাফিজরা খেলেছেন৷ কিন্তু ২৬-১১ পরে ভারত-পাক সিরিজ ও আইপিএলে পাক ক্রিকেটার অংশগ্রহণ বন্ধ হয়ে গিয়েছে৷

এই নিয়ে আর কোনও কথাও হয়নি৷ তাই বৈঠকে এই বিষয়েও কথা হবে ডালমিয়া-শাহরিয়ারের ৷ এছাড়া বৈঠকের তিন নম্বর ইস্যু বিদ্রোহী ক্রিকেট লিগ আটকানো৷ এই বিদ্রোহী লিগ আটকানোর জন্য দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ড কর্তাদের আলোচনা হবে৷ পাশাপাশি আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা হতে চলেছে বৈঠকে৷এখন প্রশ্ন হচ্ছে এভাবে আটক হওয়ার পরে কি রবিবারের বৈঠক ভেস্তে যাবে? উত্তর সময়ই দেবে৷ তবে পরিস্থিতি যাই হোক না কেন ডালমিয়া-শাহরিয়ার বৈঠক আটকাচ্ছে না বলে মনে করছে ক্রিকেট মহল ৷

রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ অবশ্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে পাক চেয়ারম্যান শাহরিয়ারকে৷মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, কেন্দ্রীয় অর্থমমন্ত্রী অরুণ জেটলি ও ভারতীয় বোর্ড সভাপতি জগমোহন ডালমিয়ার তৎপরতায় ছাড়া পেয়েছেন পাক চেয়ারম্যান৷সার্ক ভিসা থাকায় অবশেষে শহরে ঢুকতে পারলেন শাহরিয়ার৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।

Comments are closed.