ইসলামাবাদঃ  ভারতের ইতিহাসে সবথেকে বড় জঙ্গি হামলা। ভয়ঙ্কর এই জঙ্গি হামলাতে ৪০ জন শহিদ জওয়ান শহিদ হয়েছেন। এই ঘটনায় বদলা নেওয়ার দাবিতে ফুঁসছে গোটা দেশ। সার্জিকাল স্ট্রাইক কিংবা সরাসরি যুদ্ধের দাবিও উঠতে শুরু করেছে। যেভাবে ভারতের মধ্যে প্রতিশোধের আগুন জ্বলছে তাতেই আতঙ্কিত খোদ পাকিস্তানও। যে কোনও মুহূর্তে প্রত্যাঘাতের আশঙ্কায় পাকিস্তান।

আর সেই আশঙ্কা থেকে মঙ্গলবার সে দেশের সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে কার্যত ভারতকে যুদ্ধ থেকে সতর্ক করেছেন ইমরান। তাঁর দাবি, যুদ্ধ মানুষ শুরু করলেও কোথায় গিয়ে যে তা থামবে কেউ বলতে পারবে না। শুধু মন্তব্য করাই নয়, ভারতের প্রত্যাঘাতের আশঙ্কায় রাষ্ট্রপুঞ্জেরও দ্বারস্থ হচ্ছে পাকিস্তানও।

কিন্তু তাতেও আতঙ্ক কাটছে না ইমরান খান সরকারের। আর তাই জরুরি বৈঠকে বসছে পাকিস্তান। চলতি সপ্তাহেই সে দেশের প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসছে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আধিকারিকরা। যেভাবে টেনশন বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে পাকিস্তানের রণকৌশল কি হয় তা ঠিক করতেই পাকিস্তান সেনাবাহিনী এই বৈঠক ডেকেছে বলে জানা গিয়েছে। সেখানে ইসলামাবাদের পাকিস্তানের প্রশাসনিক স্তরে সমস্ত আধিকারিকদের উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। শুধু ভারতের প্রত্যাঘাতই নয়, পুলওয়ামার ঘটনাতে আন্তজাতিক চাপ বাড়ছে ইসলামাবাদের উপর। তা কীভাবে সামাল দেওয়া যাবে তাও পাকিস্তান এই বৈঠকে আলোচনা করবে বলে জানা যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন আগে পুলওয়ামাতে ভয়ঙ্কর জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটে। সেই হামলায় ৪০ জন সিআরপিএফ জওয়ান শহিদ হয়। ঘটনার দায় পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ দাবি করলেও তা মানতে নারাজ ইমরান খান সরকার।