ইসলামাবাদ:  পাকিস্তানের সেনাবাহিনী দেশে-বিদেশে প্রায় ৫০টি বাণিজ্যিক সংস্থা পরিচালনা করছে বলে জানিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাজা আরিফ। পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)’র সিনেটর ফারহাতুল্লাহ বাবরের এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে পাক সিনেটকে এমনটাই তথ্য দিয়েছেন পাক প্রতিরক্ষামন্ত্রী। পাক সেনাবাহিনীর এসব বাণিজ্যিক সংস্থা দেশটির ফৌজি ফাউন্ডেশন, শাহিন ফাউন্ডেশন, বাহিরা ফাউন্ডেশন, আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট বা এডব্লিউটি এবং ডিফেন্স হাউজিং অথোরিটি বা ডিএইচএ’র আওতায় পরিচালিত হয়।
পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ নগরীগুলোতে আটটি ডিএইচএ রয়েছে। এডব্লিউটি’র আওতায় ১৬টি বাণিজ্যিক প্রকল্প ও ইউনিট কাজ করছে। একইভাবে ফৌজি ফাউন্ডেশনের আওতায় ১৫টি এবং শাহিন ফাউন্ডেশনের আওতায় ১১টি বাণিজ্যিক প্রকল্প ও ইউনিট রয়েছে। এ ছাড়া, ২০০৮ সালে মরক্কোয় ফৌজি ফাউন্ডেশনের আওতায় পাকিস্তান মারক ফসফরাস এসএ নামের একটি কোম্পানি গঠন করা হয়েছে। অবশ্য পাক সেনাবাহিনীর আওতাধীন এসব বাণিজ্যিক সংস্থার মোট পুঁজি বা আর্থিক বিনিয়োগের পরিমাণ সম্পর্কে খবরে কিছু উল্লেখ করা হয়নি।