লন্ডন: সপ্তাহ শেষের ৪৮ ঘণ্টা খুব দীর্ঘ মনে হচ্ছে। কারণ রবি পেরিয়ে সোমবারেই আসতে চলেছে সুখবরটি। করোনাভাইরাসের যম অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের টিকার আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। করোনা প্রতিরোধক ওষুধ ও টিকা নিয়ে দুনিয়া জুড়ে গবেষণা চলছে। এর মধ্যে রাশিয়া এবং ইংল্যান্ডের গবেষকরা অনেকটা এগিয়ে। দুই দেশই টিকা বের করার দাবি রেখেছে।

এতে স্বস্তি এলেও টিকার আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ হয়নি। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন মানবদেহে প্রথম ধাপের পরীক্ষার ফল সোমবার প্রকাশিত হবে। রয়টার্স, বিবিসি এই খবর জানিয়েছে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনটির এরই মধ্যে বৃহত্তর আকারে মানব দেহে পরীক্ষার দ্বিতীয় ধাপ শুরু হয়েছে। এই ধাপে ভ্যাকসিনটি করোনার বিরুদ্ধে সুরক্ষা কতটা দেবে তা দেখবেন গবেষকরা। তবে টিকার প্রথম ধাপের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়নি। মনে করা হচ্ছে টিকার প্রাথমিক পরীক্ষার ফল ও আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ হবে সোমবার।

গবেষকরা জানিয়েছেন, মানব দেহে পরীক্ষার আগে শুয়োর দেহে টিকা প্রয়োগ করা হয়। দেখা গেছে এটি কার্যকরী। রিপোর্টে বলছে, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ওষুধ উৎপাদনকারী অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথ উদ্যোগে করোনার পরীক্ষামূলক টিকা তৈরির প্রকল্পটি চূড়ান্ত ধাপে পৌঁছেছে।

হু বলছে, ভ্যাকসিন তৈরিতে তারাই সবথেকে এগিয়ে। গত বছর চিন থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস বিশ্বজুড়ে মহামারির আকার নিয়েছে। ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসেব, সর্বাধিক করোনা আক্রান্ত ও মৃতের দেশ আমেরিকা। লক্ষাধিক মৃত এই দেশে। তার পরেই মৃতের নিরিখে দ্বিতীয় ব্রাজিল। তৃতীয় ইংল্যান্ড।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।