নয়াদিল্লি: মহাত্মা গান্ধীর গুপ্তহত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে ‘১ নম্বর হিন্দু রত্ন সন্ত্রাসবাদী’ আখ্যা দিল সর্বভারতীয় মজলিস-ই-ইত্তেহাদ উল মুসলিমের প্রধান আসাউদ্দিন ওয়াইসি৷ সেই সঙ্গে ওয়াইসি চ্যালেঞ্জ করেছেন, কারোর যদি ক্ষমতা থাকে, তবে সে তাঁর বক্তব্যের বিরোধিতা করে নোটিশ পাঠায়৷

ওয়াইসি বলেছেন, মুসলিমরা কখনই ভারতকে বিক্রি করতে চায় না৷ বরং গত ৭০ বছর ধরে তারাই নির্যাতিত হচ্ছে৷ তাদেরই হুমকি দেওয়া হচ্ছে৷ “৭০ বছর ধরে আমাদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে৷ কিন্তু এখন আমরা ভয় পাই না৷ সবচেয়ে খারাপ কী হবে? আমাদের মেরে ফেলা হবে৷ কিন্তু যদি আমরা বাঁচি, আমরা এখানেই থাকব৷ যদি মরি, এখানেই মরব৷” বলেছেন ওয়াইসি৷

হায়দরাবাদের সাংসদ এরপর বলেছেন, “মুসলিমরা পাকিস্তান বা সিরিয়ায় যেতে পারবে না৷ যাদের পাকিস্তানে যাওয়ার ছিল, তারা চলে গিয়েছে৷ আমাদের পূর্বপুরুষরা ব্রিটিশদের সঙ্গে যুদ্ধ করেছেন৷ তাঁরা স্লোগান তুলেছেন হিন্দুস্তান জিন্দাবাদ৷” পুনেতে একটি জনসভায় একথা বলেন তিনি৷

এছাড়া, বিতর্কিত তিন তালাক বিল নিয়েও বলেন ওয়াইসি৷ সেই বিল এখন রাজ্যসভায় আটকে রয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, “চোখ আর মন খুলুন মিস্টার মোদী৷ আপনি মুসলিম মহিলাদের শুভাকাঙ্খী নন৷ আপনি আমাদের শত্রু এবং আমাদের উপর যাতে অবিচার হয়, সেই চেষ্টা করছেন৷”

কয়েকদিন আগে আর্ট অফ লিভিংয়ের প্রতিষ্ঠাতা শ্রী শ্রী রবিশঙ্করের সঙ্গে অযোধ্যার রাম মন্দির ও বাবরি মসজিদ নিয়ে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন তিনি৷ সোমবার আর্ট অফ লিভিংয়ের প্রতিষ্ঠাতা শ্রী শ্রী রবি শঙ্কর জানিয়েছিলেন যে রাম মন্দির ও বাবরি মসজিদ সমস্যার সমাধান না হলে ভারতেও সিরিয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হবে৷ রবি শঙ্করের মন্তব্য এই বিতর্কিত ইস্যুতে আগুনে আরও ঘি ঢেলেছিল বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল ওয়াকিবহাল মহল। ২৪ ঘণ্টা পেরোতেই যার আঁচ মিলেছে।

মঙ্গলবার হায়দরাবাদের সাংসদ আসাদুদ্দিন ওয়াইসি একহাত নিয়েছেন শ্রী শ্রী রবি শঙ্করকে। তাঁর কথায়, “রবি শঙ্কর আইন মানেন না। তিনি নিজেকেই আইন মনে করেন।” একইসঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “নিজেকে অনেক বড় মনে করেন এবং ভাবেন যে তাঁর কথা সকালে মেনে চলবে।” শ্রী শ্রী রবি শঙ্কর নিরপেক্ষ ব্যক্তি নন বলেও দাবি করেছেন আসাদুদ্দিন।