স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: বাঁকুড়ার জয়পুরের আটক তিনটি অতিরিক্ত বালি বোঝাই লরি৷ ভূমিরাজস্ব দফতরের কর্মী, আধিকারীকরা অভিযান চালিয়ে ওই তিনটি লরি আটক করে৷

ট্র্যাক পয়েন্টে মজুত করা বালির পরিমাণ এক একটি লরিতে এক এক রকম৷ সরকার দু’শো কুড়ি সিএফটি পর্যন্ত পরিবহনের অনুমতি দিয়েছে৷ কিন্তু আটক লরি তিনটিতে মজুত করা বালির পরিমাণ তার থেকে বেশি রয়েছে৷ ট্র্যাক পয়েন্ট থেকে বের হওয়ার পরই ভূমিরাজস্ব দফতরের অন়্ কর্মীদের থেকে এি তিনটি লরি সমন্ধে অভিযোগ মেলে৷ তার ভিত্তিতেই অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় লরিগুলিকে৷ দাবি ভূমিরাজস্ব দফতরের এক আধিকারিকের৷ জরিমানার পরই আটক লড়িগুলিকে থাড়া হবে বলে জানা গিয়েছে৷

আটক লরির চালক চন্দন শীল অবশ্য অতিরিক্ত বালি বোঢাইয়ের কথা স্বীকার করেছেন৷ তার যুক্তি, ‘‘সব গাড়িতে মজুত বালির পরিমাণ বেশি৷ এক শ্রেণীর সরকারি আধিকারিক টাকা লুঠতেই এই কাজ করে৷’’ পুরোটাই টাকার খেলা বলে দাবি করেন লরির চালক৷ লরি চালকের দাবি যদি সত্যি হয় তবে সর্ষের মধ্যেই রয়েছে ভূত৷ কিন্তু প্রশ্ন ভূত তাড়াতে বেড়ালের গলায় ঘন্টা বাধবে কে?