স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: প্রার্থী বহিরাগত৷ তাই তাঁকে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়৷ এই অভিযোগেই দক্ষিণ মালদার বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরীকে প্রচার করতে বাধা দিলেন ইংরেজবাজার ব্লকের একদল গ্রামবাসী৷ এরা অধিকাংশই তৃণমূল কর্মী বলে অভিযোগ পদ্ম শিবিরের৷ গ্রামবাসীদের অসন্তোষের জেরে প্রচার না করেই ফিরে যেতে বাধ্য হন বিজেপি প্রার্থী৷ ঘটনা ঘিরে উত্তেজন ছড়ায়৷

আরও পড়ুন: গুজরাতের এক অন্য ‘মোদীর’ গল্প

কংগ্রেসের গড় বলে পরিচিত মালদা৷ হাতের শক্তি কাড়তে মালদা দক্ষিণ কেন্দ্রে গেরুয়া দল প্রার্থী করেছে ‘নির্ভয়া দিদি’ শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরীকে৷ আদতে দিল্লির বাসিন্দা৷ তাই সমূহ সম্ভাবনা এলাকা ছেড়ে অন্যত্র বসবাসের৷ ফলে ভবিষ্যতের কতা ভেবেই একজোট হয়েছেন গ্রামবাসীরা৷

ইংরেজবাজার ব্লকের কাজিগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের খোয়ারমোড় এলাকায়৷ হাত জোড় করে ভোট ভিক্ষের আশায় শ্রীরূপাদেবী৷ হঠাৎ তাঁকে ঘিরে অসন্তোষের কথা জানাতে থাকেন গ্রামবাসীরা৷ তাদের দাবি, কেন বহিরাগত প্রার্থী হবেন? এলাকার সম্প্রীতি নষ্ট করতেই প্রার্থীর গ্রামে আসা৷ বিজেপির প্রার্থীর প্রচারে বাঁধা দেন তারা৷ শুরু হয় বিজেপি কর্মীদের সহ্গে স্থানীয়দের বচসা৷

আরও পড়ুন: বারাণসীতে মোদীর বিরুদ্ধে লড়তে প্রস্তুত প্রিয়াঙ্কা, রাবার্টের মন্তব্যে জল্পনা

এরপরই গ্রামবাসীরা বলতে থাকেন, তৃণমূল সরকারের উন্নয়নের কথা৷ ইতিমধ্যে বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছেন গ্রামবাসীরা। তাদের দাবি, বহিরাগত কেউ এসে এলাকায় বিভ্রান্তিকর প্রচার করতে চাইলেই তা মানা হবে না৷ তাদের এই দাবি কোনও দলের হয়ে নয়, নিরপেক্ষ মানুষ হিসাবে৷

প্রচারে বাঁধাদানকারী গ্রামবাসীরা রাজ্যের শাসক দলের দাবি বিজেপির৷ তাদের মধ্যে দু’জনকে চিহ্নিত করা গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷ নির্বাচনী প্রচারে বাধা দেওয়ার অভিযোগে ইংরেজবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন গেরুয়া দলের প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী৷

আরও পড়ুন: ঝাঁটা হাতে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে তাড়ার নির্দেশ মন্ত্রীর, ভিডিও প্রকাশ রাজ্য বিজেপির ট্যুইটারে

এপ্রসঙ্গে দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী ডঃ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘‘পুরো বিষয়টি ভিত্তিহীন। গ্রামে গ্রামে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর উন্নয়ন মানুষ দেখেছে। তাই মানুষ এখন বিজেপির সাম্প্রদায়িক ভাঁওতাবাজিতে কান দিতে চাইছে না। এলাকায় শান্তি বিঘ্নিত হতে পারে এই আশঙ্কা করেই প্রচারে বাধা দিয়েছেন গ্রামবাসীরা। আর বিজেপি কোন পথ না পেয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে মিথ্যা কথা বলছে। মানুষ বুঝে গিয়েছে বিজেপি কোন কিছু করতে পারেনি। এবার আমার জয় নিশ্চিত ভেবে পাগল হয়ে গিয়েছে বিজেপি।’’