স্টাফ রিপোর্টার: এনআরএস কাণ্ডে জেলায় জেলায় হাসপাতালগুলিতে কর্ম বিরতির ডাক দিয়েছেন চিকিৎসকরা৷ এরপর বুধবার থেকে বন্ধ হয়ে গেল আউটডোর পরিষেবা৷ ভোগান্তির শিকার রোগীর পরিবার৷ বিক্ষোভে সামিল তারা৷

 

সেই একই চিত্র দেখা গেল জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালটি হাসপাতালে৷ ডুয়ার্সের ক্রান্তি এলাকা থেকে করুণা দাস ছোট নাতনিকে নিয়ে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালটি হাসপাতালে এসেছিলেন স্কিন স্পেশালিষ্ট দেখাবেন বলে। হাসপাতালে এসে এই পরিস্থিতি দেখে চরম বিপাকে পড়েন। তিনি বলেন, দিন মজুরি কাজ বন্ধ করে সাতসকালে ছোট বাচ্চাকে নিয়ে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূর থেকে এলাম। ১৫০ টাকা খরচ হল কিন্তু কাজ কিছুই হল না। ভোগান্তির শিকার হলাম।

আউটডোর পরিষেবা বন্ধ রেখে বিক্ষোভে বসলেন ডাক্তারবাবুরা। জলপাইগুড়ি সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভ দেখালেন জলপাইগুড়ি আইএম-এর সদস্যরা। চিকিৎসক না আসায় প্যাথলজি ল্যাবোটারিগুলিও বন্ধ রয়েছে।

পাশাপাশি হাওড়ার চিকিৎসকরাও প্রতিবাদে সামিল হয়েছেন। হাওড়া জেলা হাসপাতালের সরকারি চিকিৎসকরা আউটডোর পরিষেবা বন্ধ রাখলেও জরুরি বিভাগের পরিষেবা তারা দিয়ে যাচ্ছেন। কিছু চিকিৎসকেরা এসেছেন। তাঁরা বাইরে বসে রোগী দেখছেন। চিকিৎসকদের বুকে রয়েছে কালো ব্যাজ।

একই অবস্থা দেখা গেল দক্ষিণ দিনাজপুরের হাসপাতালগুলিতেও৷ বালুরঘাটে জেলা হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসা করাতে আসা রোগীরা অপেক্ষা করলেও দেখা নেই চিকিৎসকদের। তাদের কর্মবিরতির জেরে চরম অসহায় অবস্থার পড়েছেন সাধারণ মানুষ৷

এই ঘটনার রেশ বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল ছাড়িয়ে এবার মহকুমা ও ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলিতেও ব্যাপক প্রভাব ফেলল। এদিন ইন্দাস ব্লক প্রাথমিক ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বহির্বিভাগের দরজায় তালা দেওয়া ছিল। শুধুমাত্র হাসপাতালে ভরতি থাকা রোগীদের চিকিৎসা পরিষেবা চালু রয়েছে।

বহির্বিভাগে চিকিৎসা পরিষেবার সুযোগ নেবেন বলে এলাকার প্রত্যন্ত গ্রাম গুলি থেকে অসংখ্য সাধারণ মানুষ হাসপাতালে পৌঁছেছেন। এদের মধ্যে অনেক অসুস্থ শিশু ও অশীতিপর বৃদ্ধ-বৃদ্ধা আছেন। এই অবস্থায় হাসপাতালের বহির্বিভাগ না খোলায় চরম সমস্যায় সকলেই।

এই বিষয়ে ইন্দাস ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বিএমওএইচ কৌশিক পাণ্ডার স্পষ্ট বক্তব্য, রাজ্যের সমস্ত সরকারি হাসপাতালে বহির্বিভাগ বন্ধ আছে। এই বিষয়টিকে আমরাও সমর্থন করেছি। তবে জরুরি বিভাগ যথারীতি চালু রয়েছে বলে তিনি জানান।