মুম্বই: দামি আবাসন এর দিকে নজর দেওয়া হয়েছে আর আর অবহেলা করা হয়েছে বস্তির প্রতি। বর্তমান পরিস্থিতি অনুধাবন করে শিল্পপতি রতন টাটা আক্ষেপের সুরে স্থপতিদের বার্তা দিতে চেয়েছেন। তার মতে, বস্তি এলাকা গড়ে তোলা হয় যেন শহুরে উন্নয়নের অবশিষ্ট অংশরূপে। টাটা গোষ্ঠীর ইমেরিটাস চেয়ারম্যানের বস্তি সম্পর্কে বক্তব্য, যথেষ্ট খোলা জায়গা না থাকায় সেখানে বাসিন্দারা তাজা হাওয়ার স্বাদ পায় না। এটাই তো লজ্জার। ওখান থেকে ‌ দ্রুত করোনা ছড়ানোর অন্যতম কারণ।

রতন টাটা অনলাইনে এক আলোচনায় করোনা সংক্রমণের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে স্থপতিদের প্রতি উষ্মা প্রকাশ করেন। পাশাপাশি তাকে এই প্রসঙ্গে স্থাপত্যবিদ্যা নিয়ে কিছুটা আবেগপ্রবণ হতে দেখা গিয়েছে। এই বিষয়টিকে তার ভালো লাগতো কিন্তু শেষমেষ পেশা হিসেবে গ্রহণ না করার জন্য কিছুটা আক্ষেপ করতে তাকে দেখা গিয়েছে।

সম্প্রতি মুম্বইয়ের অস্বাস্থ্যকর ঘিঞ্জি ধারাভি বস্তি এলাকাতে ‌ করোনার থাবা‌ বসেছে। সেখানে ইতিমধ্যেই ১৪০ জন আক্রান্ত বলে জানা গিয়েছে। তারই প্রেক্ষিতে রতন টাটার এমন অভিব্যাক্তি প্রকাশ করেছেন বলেই মনে করা হচ্ছে। তার অভিমত, বস্তি এলাকার জীবন-যাপনে ইতি টানতে গিয়ে তাদের বেশ কয়েক কিলোমিটার দূরে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সেখানে ‌ উৎখাত হওয়া লোকগুলোর জন্য  কর্মসংস্থানের কোন সুযোগ নেই ‌। আর তাদের ওই জায়গায় তৈরি হয়েছে দামি আবাসন প্রকল্প। বিকল্প হিসেবে যেখানে থাকতে দেওয়া হয়েছে তা ঘনবসতিপূর্ণ ফলে করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর জন্য ওই এলাকা অন্যতম কারণ হয়ে উঠছে।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।