ফাইল চিত্র৷

দেবযানী সরকার, কলকাতা: কালের নিয়মে রাজবাড়ির জৌলুস হারিয়েছে। ছিন্ন হয়েছে যৌথ পরিবারের বন্ধনও। কিন্তু মায়ের আরাধনায় ফের একসঙ্গে হয়েছেন বংশের প্রবীণ-নবীনরা। ‘আহিরীটোলা রাজবাড়ি’র দুর্গাপুজোয় গেলে এবার সেই ছবিই দেখা যাবে৷

রাজাও নেই, সে রাজ্যপাটও নেই। আছে শুধু রাজ পরিবারের মন্দিরটুকু। তারও ভগ্নপ্রায় অবস্থা। বাংলার বহু রাজবাড়ির ছবি অনেকটা এরকমই৷ এবার সেরকমই কোনও রাজবাড়ির প্রতিচ্ছবি ধরা পড়বে আহিরীটোলা সর্বজনীনের দুর্গাপুজোয়৷

আরও পড়ুন: কেরলবাসীকে ১ লক্ষ টাকার চেক অবসর প্রাপ্ত শিক্ষকদের

৭৯তম বর্ষে পা দিয়েছে উত্তর কলকাতার এই পুজো থিম ‘রাজবাড়ির পুজো’। পুরনো রাজবাড়ির আদলই এবার ফুটে উঠবে মণ্ডপে। সেখানেই সেজে উঠছেন উমা। শিল্পী তন্ময় চক্রবর্তীর সৃজনে গড়ে উঠছে পুজোমণ্ডপ।

এবছর এখানকার প্রতিমার অলঙ্কারে আলাদা চমক থাকছে৷ একটি নামী গয়না বিক্রেতা কোম্পানি দেবীর গয়না স্পনসর করছে৷ সোনার মতো দেখতে হলেও প্রতিমার মুকুট থেকে যাবতীয় গয়না কিন্তু সোনার নয়। বরং তামা ও রুপোর মিশ্রণে তৈরি হচ্ছে। তাতে সোনালি পালিশ।

আরও পড়ুন: সুজিতের ‘বায়না’ মেটাতেই পিতৃপক্ষে পুজোর উদ্বোধনে মমতা

কমিটির উদ্যোক্তা অলোক কুমার সাহা জানিয়েছেন,বিসর্জনের পর সেই গয়নাই নিলাম করা হবে। নিলামের টাকা দান করা হবে শিশু ও নাবালিকাদের কল্যাণে। বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা যারা শিশুকন্যা ও নাবালিকাদের কল্যাণে কাজকর্ম করে তাদেরই সেই টাকা তুলে দেওয়া হবে পুজো কমিটির তরফ থেকে। আবহ সংগীতের দায়িত্বে রয়েছেন সুরকার জয় সরকার।

আরও পড়ুন: শহরে বাড়াতে হবে মহিলা নিরাপত্তা, দাবি যুব কংগ্রেসের

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ