নয়াদিল্লি: ‘কৃষি বিলে সই করবেন না’, রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দকে আবেদন বিরোধীদের। বুধবার বিকেলে কৃষি বিল সংক্রান্ত আলোচনার জন্য রাষ্ট্রপতি ভবনে যায় বিরোধীদের একটি প্রতিনিধি দল। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে দেখা করেন বিরোধী নেতারা। অসাংবিধানিকভাবে কেন্দ্র কৃষি বিল পাস করিয়েছে বলে রাষ্ট্রপতিকে নালিশ জানান বিরোধী সাংসদরা। রামনাথ কোবিন্দকে ওই বিলে সই না করার জন্য আবেদন জানিয়েছে বিরোধীরা।

সংসদের জল গড়াল রাষ্ট্রপতি ভবনে। কৃষি বিল নিয়ে প্রতিবাদ করার ধরনে আপত্তি জানিয়ে রাজ্যসভার আট সাংসদকে বরখাস্ত করেছেন চেয়ারম্যান তথা উপ রাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডু। প্রতিবাদে রাজ্যসভার অধিবেশন বয়কট করেছে বিরোধীরা।

বুধবারও দিনভর সংসদের বাইরে প্ল্যাকার্ড হাতে কেন্দ্র-বিরোধী বিক্ষোভ কর্মসূচিতে অংশ নেন বরখাস্ত আট সাংসদ-সহ একাধিক বিরোধী সাংসদ। সেই বিক্ষোভ কর্মসূচির পরেই বিকেলে রাষ্ট্রপতি ভবনে যান বিরোধীদের একটি প্রতিনিধি দল।

এদিন রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন কংগ্রেসের বর্ষীয়ান সাংসদ গুলাম নবি আজাদ। তিনি জানান, বিরোধীদের তরফে রাষ্ট্রপতিকে কৃষি বিল ফেরত পাঠানোর আবেদন করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতিকে কৃষি বিলে সই না করার জন্য আবেদন জানানো হয়েছে।

কেন্দ্রীয় সরকার সংবিধান লঙ্ঘন করে কৃষি বিল পাস করিয়েছে বলে অভিযোগ গুলাম নবি আজাদের। রাষ্ট্রপতিকেও এদিন সেব্যাপারে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিয়েছেন বিরোধী নেতারা।

কৃষি বিল নিয়ে শুরু থেকেই আপত্তি ছিল বিরোধীদের। বিরোধীদের তুমুল আপত্তি সত্ত্বেও রবিবার রাজ্যসভায় কৃষি বিল পাস করিয়ে নেয় কেন্দ্র। অধিবেশন কক্ষে বিলের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানাতে থাকেন বিরোধী তৃণমূল থেকে শুরু করে অন্য দলের সাংসদরা।

তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন রুল বুক ছিঁড়েছেন ও ডেপুটি চেয়াম্যানের মাইক ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ। ‘শাস্তি’ হিসেবে তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন ও দোলা সেন-সহ মোট ৮ বিরোধী সাংসদকে বরখাস্ত করেছেন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডু। তারপর থেকেই রাজ্যসভার অধিবেশন বয়কট করে চলেছেন বিরোধীরা।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।