নয়াদিল্লি: রবিবার মিটেছে সপ্তম তথা শেষ দফার ভোট ৷ বৃহস্পতিবার ভোটগণনা তথা ফল প্রকাশ হবে ৷ কিন্তু ইতিমধ্যেই ইভিএম সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা ৷ আর তা নিয়ে তোলপাড় হয়েছে দেশ৷

ভোটের ফল এখনও না বের হলেও রবিবার বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলে বের করেছে বেশ কয়েকটি সংস্থা ৷ এই বুথ ফেরত সমীক্ষায় ইঙ্গিত মিলেছে বিজেপি ফের ক্ষমতায় ফিরছে৷ আর মোদীর এই ক্ষমতায় ফেরার ইঙ্গিত মেলায় বিভিন্ন দলের নেতারা আশংকা করছে এবার ইভিএম মেশিনটাই বদলে দিতে পারে৷ এই অভিযোগ নির্বাচন কমিশনকে জানানো হয়েছে ৷ পাশাপাশি বেশ কিছু দল তাদের কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছে ইভিএম পাহারা দেওয়ার৷

আবার এটাই ঠিক ভোট মিটতে বিরোধীরা শাসক দলের বিরুদ্ধে নানা সময়ে ভোট প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে যারফলে এবারেই প্রথম প্রশ্ন তোলা হচ্ছে এমন নয়৷ এর আগেও নানা রকম প্রশ্ন তোলা হয়েছে বলেই ভোট প্রক্রিয়ায় বিবর্তন এসেছে – ব্যালট পেপার থেকে ইভিএম মেশিনে ভোট করা কিংবা ভোটার পরিচয় পত্র চালু হয়েছে ৷

তবে এই প্রসঙ্গে বেশ অদ্ভূত একটা অভিযোগ উঠেছিল ১৯৭১ সালের নির্বাচনের পরে৷ সেই সসময় দেশজুড়ে ইন্দিরা গান্ধীর হাওয়া৷ তখন ইন্দিরা বিরোধীরা অভিযোগ এনেছিলেন, অধিকাংশ ব্যালট পেপারে নাকি এমন এক অদৃশ্য কালি দিয়ে ব্যবহার করা হয়েছে, যা ৭২ ঘন্টা পর ফুটে ওঠে, এবং তাতে নাকি কংগ্রেসের অনুকূলে ভোট যাবে। তখন মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক এস পি সেন বর্মা, অভিযোগটিকে ভিত্তিহীন বলে খারিজ করে দিয়েছিলেন।

তাঁর যুক্তি ছিল, এমন ধরনের উদ্যোগ নিতে গেলে , প্রায় গোটা দেশজুড়ে একজোট হয়ে ‘কাজ’ করতে হত যা বাস্তবে একেবারে অসম্ভব৷

ইন্দিরার নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে নব কংগ্রেস পেয়েছিল রেকর্ড সংখ্যক সাড়ে তিনশো আসন৷