নয়াদিল্লি: সাত দফার নির্বাচনের পরে এবার লক্ষ্য ২৩ মে৷ দেশের দায়িত্ব কী ফের গেরুয়া শিবিরের কাঁধেই উঠবে নাকি গত পাঁচ বছরের চেনা ছবিটা বদলে যাবে, আপাতত সেই দিকেই চোখ রয়েছে সকলের৷ যদিও বিভিন্ন বুথ ফেরৎ সমীক্ষা ইতিমধ্যেই গেরুয়া ঝড়ের যে ইঙ্গিত দিয়েছে তাতে বিরোধী শিবিরের কপালে ভাঁজ পড়ার মতোই অবস্থা বলে মত অনেকের৷ তবে আশা জিইয়ে রেখে বিজেপি সমূলে উপড়ে ফেলার লক্ষ্যে আজ মঙ্গলবার দুপুরে ২২ টি দলের বৈঠক হয়। এই বৈঠক চলে দিল্লির কনস্টিটিউশন ক্লাব অফ ইন্ডিয়ায়।

এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূলের ডেরেক ও’ব্রায়েন, টিডিপি প্রধান চন্দ্রবাবু নাইডু, কংগ্রেসের গুলাম নবি আজাদ প্রমুখ। রয়েছেন সীতারাম ইয়েচুরি, কানিমোঝি, অরিবন্দ কেজরিওয়াল সহ বহু নেতা৷

এই ২২ টি বিরোধী দলের নেতারা নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি জানায়, গণনার পূর্বে যেন VVPAT স্লিপ যাচাই করে নেওয়া হয়৷ তবে এই যাচাই পর্বের মাঝে কোনও অমিল ধরা পড়লে, সেই লোকসভা কেন্দ্রে সমস্ত পোলিং বুথের ভিভিপ্যাট পেপার স্লিপ যাচাই করার পাশাপাশি ইভিএম ফলাফলের সঙ্গে তার তুলনা করারও দাবি জানিয়েছেন বিরোধী নেতারা৷

নির্বাচন কমিশন আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ সাংবাদিকদের জানান, নির্বাচন কমিশনকে আমরা বলেছি ভিভিপ্যাট মেশিন গণনা আগে করা প্রয়োজন এবং সেখানে কোনও গরমিল ধরা পড়লে সেই লোকসভা কেন্দ্রে সমস্ত পোলিং বুথের ভিভিপ্যাট পেপার স্লিপ যাচাই করা উচিত৷ তেলুগু দেশম পার্টি নেতা এন চন্দ্রবাবু নাইডু সাংবাদিকদের বলেন, জনগণের ভোটকে সম্মান প্রদর্শনের বিষয়েই নির্বাচন কমিশনকে বলেছি৷ বহুজন সমাজবাদী পার্টি নেতা সতীশ চন্দ্র মিশ্র বলেন, উত্তরপ্রদেশে ইভিএম সংক্রান্ত বিষয়ে সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে৷ তাই আমরা কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছি৷