ভারতে টাকা লেনদেন পরিষেবার জন্য চালু হতে পারে OnePlus Pay অ্যাপ্লিকেশনটি। একজন টিপস্টার এই OnePlus Pay চালু হবার কথা নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে প্রকাশ করেছে। টুইটারের দেওয়া তথ্যটি সত্যি হলে এই বছরের শেষে গ্রাহকরা অনলাইনে টাকা লেনদেনের জন্য এই নতুন পরিষেবা গ্রহণ করতে পারবে।

একজন টিপস্টার তার ট্রেডমার্ক ফাইলিংয়ের একটি স্ক্রিনশট টুইটারের প্রকাশ করে ভারতে OnePlus Pay এর কথা উল্লেখ করেছে। আগামী মে মাসে এই পরিষেবা চালু হতে পারে বলে জানানো হয়েছে এই টুইটে। ২০১৯ সালে চায়নায় এই অনলাইন টাকা লেনদেনের পরিষেবার জন্য OnePlus Pay কথা প্রথম ঘোষণা করা হয়। আর সেই কথা মতো এক বছর পর চিনে এই পরিষেবায় চালুও হয়।

এই অনলাইন টাকা লেনদেন পরিষেবা ভারতে চালু করার বিষয়ে OnePlus কর্তৃপক্ষের তরফে কিছু জানানো হয়নি এখনও। চিনে জনপ্রিয় ফোন প্রস্তুত কারক সংস্থা বিশ্বজুরে ফোনের পাশাপাশি Google Pay, Paytm, PhonePe এবং আরও বিভিন্ন অনলাইন টাকা লেনদেনের অ্যাপ্লিকেশনের তালিকায় নিজের নাম লেখাতে আগ্রহী।

ওয়ানপ্লাস পে-র জন্য ট্রেডমার্ক ফাইলিং টিপস্টার মুকুল শর্মা (@stufflistings) টুইট করে উল্লেখ করেছেন ওয়ানপ্লাস দ্বারা দায়ের করা ট্রেডমার্ক এবং ট্রেডমার্কের রেজিস্ট্রার কর্তৃক স্বীকৃত বিষয়টি। অ্যাপল, গুগল এবং স্যামসাং পেমেন্ট পরিষেবাগুলিকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য মোবাইল পেমেন্ট পরিষেবা এনএফসি-ভিত্তিক অর্থপ্রদানের সাথে একটি মোবাইল ওয়ালেট নিয়ে আসতে চলেছে এই কোম্পানি। ৩০ মার্চ ওয়ানপ্লাস দ্বারা ট্রেডমার্ক ফাইল করা হয়েছিল এবং এ ব্যাপারে আর কোনও তথ্য এখনও মেলেনি।

২০২০ সালের মার্চ মাসে চিনে প্রথম এই OnePlus Pay পরিষেবা প্রকাশ করা হয়, এবং এখনও পর্যন্ত সেই দেশে এটি সীমাবদ্ধ রয়েছে। সংস্থাটি এই অনলাইন টাকা লেনদেনের পরিষেবা চালু করার জন্য প্রায় অর্ধেকেরও বেশি মাস ধরে HydrogenOS, এবং চায়নার নির্দিষ্ট্য OxygenOS এর ওপর পরীক্ষা করে। এই পরিষেবা চালু করার জন্য, ওয়ানপ্লাস ব্যবহারকারীদের অ্যাপ্লিকেশনটিকে তাদের ডিফল্ট এনএফসি-ভিত্তিক পেমেন্ট অ্যাপ হিসাবে সেট করতে হবে এবং তাদের ব্যাঙ্কের বিবরণ উল্লেখ করতে হবে অ্যাপ্লিকেশনে। এর পরে পরিষেবাটি সক্রিয় হলে তা চালু করার অনুমতি দেওয়া হবে কর্তৃপক্ষের তরফে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.