কলকাতা : বুধবার ছিল নোটবন্দির বর্ষপূর্তি৷ সেদিন পথে নেমে কালা দিবস পালন করেছে তৃণমূল কংগ্রেস৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও তোপ দেগেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে৷ অথচ তার পরদিনই তিনি ‘ধন্যবাদ’ জানালেন প্রধানমন্ত্রীকে৷ বৃহস্পতিবার নবান্নে বসে এক ভিডিও কনাফারেন্সের মাধ্যমে তিনি এদিন ধন্যবাদ জানান মোদীকে৷

নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর সাক্ষাৎ খুবই কম হয়েছে৷ বরং কেন্দ্রীয় সরকারের নানা সিদ্ধান্ত নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী সবসময় সরব হয়েছে৷ সমালোচনা করেছেন৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই মুহূর্তে সারা দেশে প্রধানমন্ত্রীর সবচেয়ে বড় সমালোচক৷ সেই তিনিই কি না প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছেন৷ স্বাভাবিকভাবই প্রশ্ন উঠছে, কেন তিনি এমন বললেন?

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবারই সূচনা হল কলকাতা-খুলনা রেল যোগাযোগের৷ চালু হল বন্ধন এক্সপ্রেসের৷ সেই ট্রেন চলাচলের সূচনা উপলক্ষ্যে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুখোমুখি হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ ওই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানোর জন্যই প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বলেছেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ধন্যবাদ এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য৷’’ রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের দাবি, এটা নেহাতই প্রশাসনিক সৌজন্য৷ এর মধ্যে অন্য কোনও মানে খোঁজা অনুচিত৷

এদিন মুখ্যমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পশ্চিমবঙ্গে আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন৷ পাশাপাশি বাংলাদেশকে ভারতের অন্যতম সেরা বন্ধু হিসাবে উল্লেখ করে জানিয়েছেন, এই বন্ধন দুই দেশের সম্পর্ককে আরও উন্নত করবে৷

১৯৬৫ সালে বন্ধ হয়ে যাওয়া এই ট্রেন পরিষেবা ভারতের সঙ্গে তাঁদের সম্পর্ক আরও উন্নত করবে বলেও স্বীকার করেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও৷ অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জানিয়েছেন, বন্ধন এক্সপ্রেস দুই দেশের ট্রেন চলাচলে সময় বাঁচাবে৷

রেল সূত্রের খবর, ট্রেনটি চালু হওয়ায় ১৭৬ কিলোমিটারের এই রুট অতিক্রম করতে বাংলাদেশের দিকে দু’ঘণ্টা এবং এ দেশে দু’ঘণ্টা সময় নেবে ট্রেনটি। শুল্ক এবং অভিবাসন সংক্রান্ত কাজে কিছুটা সময় ব্যয় হবে। দেশ ভাগের আগে এই পথে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করত। পরে তা বন্ধ হয়। ২০০১ সাল থেকে এই রুটে পণ্য পরিবহণ শুরু হয়। এদিন কলকাতা স্টেশনে এই ট্রেন পরিষেবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়৷