কলকাতা: ‘আশ্বিনের মাঝামাঝি উঠিল বাজনা বাজি, পূজার সময় এল কাছে।’ বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী অলকানন্দা রায়ের কণ্ঠে এবার রবি ঠাকুরের কবিতা। এই কাজে তাঁর সঙ্গে অংশ নিয়েছেন দুই দেশের দুই সহশিল্পী। বাংলাদেশের বাচিকশিল্পী সামিউল ইসলাম পোলাক এবং ভারতের বাচিকশিল্পী সত্যজিৎ বিশ্বাস। এর আগে কবিতার নৃত্য পরিবেশন করতে দেখা গিয়েছে অলকানন্দা রায়কে।

এবার তিনি সরাসরি কবিতাপাঠে অংশ নিলেন। সত্যজিৎ বিশ্বাস kolkata24x7-কে বলেন, “অলকানন্দা রায়ের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা সারা জীবনের সঞ্চয়। রবীন্দ্রনাথের পূজার সাজ কবিতাটি মায়ের ভূমিকায় পাঠ করেন তিনি। আর দুই ছেলের ভূমিকায় সামিউল এবং আমি।” ইতিমধ্যেই দর্শকের সামনে এসেছে পূজার সাজের ট্রেলার। সংশোধনাগারে বন্দিদের সংশোধনের উদ্দেশ্যে অলকানন্দা রায়ের উদ্যোগের কথা সকলেরই জানা।

দেশ ছাড়িয়ে বিদেশও ছড়িয়ে পড়েছিল তাঁর এমন উদ্যোগের কথা। এই একুশ শতকেও তাঁর হাত ধরে দস্যু রত্নাকর হয়ে উঠেছিলেন বাল্মীকি। ডেকেছিলেন ‘মা’ বলে। ফের তিনি মায়ের ভূমিকায়। এবার অবশ্য সম্পূর্ণ অন্য আঙ্গিকে ‘মা’ অলকানন্দা রায়। দুই দেশের দুই ছেলের হাত ধরে কাঁটাতারের বেড়াকে তুচ্ছ করে দুই বাংলাকে তিনি মিলিয়ে দিলেন স্নেহের বাঁধনে। এবারের মহালয়ায় কাব্য ক্রিয়েশনের প্রযোজনায় প্রকাশিত হচ্ছে রবি ঠাকুরের ‘পূজার সাজ’ কবিতাটির আবৃত্তি।

সঙ্গীত আবহে রয়েছেন বাঁশিবাদক সৌম্যজ্যোতি ঘোষ। কবিতার দৃশ্যায়নে রংতুলির টান দিয়েছেন মেদিনীপুরের দেবায়ন কর। অলকানন্দা রায়ের সঙ্গে কাজ করতে পেরে কাব্য ক্রিয়েশন গ্রুপের সদস্যরা আপ্লুত। এবার পুজোয় কাজটি শোনার অপেক্ষায় দুই বাংলার অসংখ্য কবিতাপ্রেমী।