স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: করোনার পরিস্থিতিতে রাজ্যে অসংগঠিত শ্রমিকদের পাশে দাঁড়াতে নয়া প্রকল্প চালু করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ‘প্রচেষ্টা’ নামে এই প্রকল্পে অসংগঠিত শ্রমিকদের এক হাজার টাকা করে দেওয়া হবে। এব্যাপারে বৃহস্পতিবার নির্দেশিকা জারি করেছে নবান্ন। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ১৫ এপ্রিল থেকে ১৫ মে-র মধ্যে অসংগঠিত শ্রমিকরা সাহায্যের আবেদন জানাতে পারবেন।

তবে পরিবারের এক জনই আবেদন জানাতে পারবেন। বিজ্ঞপ্তিতে এটাও বলা হয়েছে, যে সমস্ত শ্রমিকরা ইতিমধ্যেই অন্য কোনও সরকারি প্রকল্প যেমন বিধবাভাতা, বার্ধক্যভাতা পেয়ে থাকেন, তাঁরা এই প্রকল্পের আওতায় আসবেন না।

এছাড়া, বিশেষভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের জন্য রাজ্য সরকারের তরফে যে ভাতা দেওয়া হয়, তারাও এই প্রকল্পের আওতায় নন। কোথায় আবেদন করবেন? জেলাগুলির ক্ষেত্রে প্রকল্পের আওতায় যাঁরা পড়েন, তাঁরা আবেদনপত্রটি জেলাশাসকের কাছে জমা করতে পারবেন। জেলাগুলিতে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবেদনপত্রটি খতিয়ে দেখবেন।

আবেদনকারীরা এই প্রকল্পে টাকার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে কিনা, সেব্যাপারে বিডিও ও এসডিওর থেকে খোঁজখবর নেবেন। কলকাতা পুরসভার ক্ষেত্রে কমিশনারের কাছে আবেদনপত্র জমা করা যাবে।এরপর আবেদনের ভিত্তিতে টাকা দেওয়া হবে। কলকাতা পুরসভা এলাকাগুলিতে আবেদনপত্র খতিয়ে দেখবেন কেএমসি-র কমিশনার। আবেদনের সত্যতা যাচাইয়ের পরই টাকা দেওয়া হবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।