স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রথে বৃষ্টি হয়। সকাল হতেই সম্পূর্ণ উলটো চিত্র। মেঘের আনাগোনা কম, উল্টে ঝকঝকে রোদের দেখা মিলছে। ‘morning shows the day’।
হাওয়া অফিস জানিয়েছে বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকলেও তা খুবই কম। কারন ওডিশা নয় তার থেকেও দূরে সরে যাচ্ছে নিম্নচাপ। ফলে যত দূরে সরছে বৃষ্টির পরিমাণ স্বাভাবিক নিয়মেই কমছে দক্ষিণবঙ্গে। তাই রথের দিন বৃষ্টির সম্ভাবনা খুব কম।
নিম্নচাপ ক্রমশ সরে এখন ছত্তিশগঢ়ের উপর অবস্থান করছে। তার জেরে ওডিশা এবং ঝাড়খণ্ডে ভারী বৃষ্টির সম্ভবনা। ফলে থেকে বৃষ্টি আরও কমবে দক্ষিণবঙ্গে। মৌসুমি বায়ুর প্রভাব থাকায় দক্ষিণবঙ্গে মিলতে পারে মাঝারিও নয় , শুধুই হালকা বৃষ্টি। এমনই পূর্বাভাস আলিপুর আবহাওয়া দফতরের।
উত্তরবঙ্গেও আপাতত বর্ষণের সম্ভাবনা নেই। আবহাওয়া দফতরের তরফে জানিয়েছে, গত কয়েকদিন বৃষ্টি দিয়েছিল নিম্নচাপ তা পশ্চিমে সরে গিয়েছে। এখন মধ্যপ্রদেশ এর উপরে রয়েছে নিম্নচাপ। ঘূর্ণাবর্তও একই স্থানে রয়েছে। নিম্নচাপ সরে যাওয়ার ফলে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে ও উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির পরিমাণ কমেছে। এই বৃষ্টির পরমাণ আরও কমবে আগামী ৪৮ঘন্টায়।
আবহবিদরা আরও জানাচ্ছেন নিম্নচাপের প্রভাব থাকবে শুধুমাত্র বঙ্গোপসাগরের উপরে। সমুদ্র উত্তাল থাকার জন্যে মৎস্যজীবীদের আগামী ২৪ ঘন্টায় সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। নিম্নচাপ সরে যাওয়ার ফলে কলকাতাসহ দক্ষিণ বঙ্গে আগামীকাল থেকে তাপমাত্রা ও আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি বাড়বে।
নতুন কোনও সিস্টেম তৈরির সম্ভাবনা এখনিই নেই। তাই দু এক দিন বৃষ্টি হচ্ছে। আবহাওয়াবিদদের নজর পরবর্তী ৭২ ঘন্টায় সাগরের দিকে। সেখানে কোনও সিস্টেম তৈরি হয়ে শক্তি সঞ্চয় করলেই দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনা বাড়বে। তবে সপ্তাহান্তে উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।
এদিকে কলকাতাতেও রথের দিন বৃষ্টির সম্ভাবনা কম। কোথাও কোথাও দু এক পশলা বৃষ্টি হতে পারে। আর্দ্রতাজনিত গরম থাকবে তা সকালের আবহাওয়াতেই স্পষ্ট।
এদিন শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৩.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশী। সর্বনিম্ন ২৭.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশী। আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বোচ্চ ৯৭ শতাংশ , সর্বনিম্ন ৭১ শতাংশ। বৃষ্টি হয়েছে ০.১ মিলিমিটার।