নয়াদিল্লি: সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ খুনে গ্রেফতার আরও ১। সাংবাদিক খুনের ষড়যন্ত্রে যুক্ত থাকার অভিযোগে ঝাড়খন্ডের ধানবাদের কাতরা থেকে গ্রেফতার রুষিকেশ দেবদিকার মুরলী। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে রুষিকেশকে গ্রেফতার করে স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম বা সিট। এখনও পর্যন্ত বেঙ্গালুরুর সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ খুনে গ্রেফতার ১৮।

২০১৭ সালের ৫ সেপ্টেম্বর বেঙ্গালুরুতে নিজের বাড়িতেই খুন হয়েছিলেন সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ ৷ সাংবাদিক খুনের পর শোরগোল পড়ে যায় গোটা দেশে। হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের মদতে খুনের অভিযোগ ওঠে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পথে নেমে প্রতিবাদে সামিল হন সাংবাদিকরা। একইসঙ্গে বিজেপিকে কাঠগড়ায় তুলে প্রতিবাদের সুর আরও চড়াতে শুরু করে বিজেপি-বিরোধী একাধিক দলগুলি।

সাংবাদিক খুনের তদন্তে স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম বা সিট তৈরি করে বেঙ্গালুরু পুলিশ। ঝাড়খণ্ড থেকে রুষিকেশ গ্রেফতার সাংবাদিক খুনের মামলায় বড়সড় সাফল্য় বলে মনে করছে সিট। সিটের অফিসারদের দাবি, ধৃত রুষিকেশ গৌরী লঙ্কেশ খুনে অন্যতম মূল ষড়যন্ত্রকারী।

বেঙ্গালুরুর সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ খুনে ধৃত রুষিকেশ দেবদিকার মুরলি আদতে ঔরঙ্গাবাদের বাসিন্দা। পুলিশের দাবি রুষিকেশ সাংবাদিক খুনের অন্য়তম মূল ষড়যন্ত্রকারী ছিল। ঝাড়খন্ডের ধানবাদ থেকে তাকে গ্রেফতারের পর তার বাড়িতেও তল্লাশি চালায় পুলিশ। গৌরী লঙ্কেশ খুনের পর থেকেই গা ঢাকা দিয়েছিল রুষিকেশ।

রুষিকেশকে নিয়ে এখনও পর্যন্ত সাংবাদিক খুনে ধৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১৮। গৌরী লঙ্কেশ খুনে আরও দুই অভিযুক্তের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ।

বাম মনোভাবাপন্ন সাংবাদিক ছিলেন গৌরী লঙ্কেশ। ২০১৭ সালের ৫ সেপ্টেম্বর বাড়ির সামনেই তাঁকে খুন করে দুষ্কৃতীরা। সিটের অফিসাররা জানিয়েছেন, গৌরী লঙ্কেশ খুনে অভিযুক্তরা আগে থেকে হত্যা করার জন্য একটি নামের তালিকা তৈরি করেছিল।

সেই তালিকায় গৌরী লঙ্কেশের পাশাপাশি নাম ছিল অভিনেতা গিরিশ কার্নাড ও যুক্তিবাদী কেএস ভগবানের। রীতিমতো আগে থেকে ছক কষে খুন করা হয় সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশকে। দক্ষিণপন্থী একটি দল সেই খুনে জড়িত বলে জানিয়েছে পুলিশ। এর আগে যুক্তিবাদী লেখক এমএম কালবুর্গিকে খুনেও অভিযুক্ত ছিল দলটি।