মালদা: চুরির অপবাদে নাবালকের উপর করা হল নারকীয় অত্যাচার। এমনকি বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে বেধড়ক মারধোরের পাশাপাশি দেওয়া হল ইলেকট্রিক শক। এই অমানবিক অত্যাচারের অভিযোগ উঠছে স্থানীয় বাসিন্দাদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে মোথাবাড়ি থানার পঞ্চানন্দপুর এলাকায় লাহারদী টোলার এলাকায়। আহত অবস্থায় নাবালক কে ভর্তি করানো হয়েছে মালদা মেডিক্যালে।

মোথাবাড়ির থানার বাসিন্দা আমেনা বেওয়া। গতকয়েক বছর আগে তার স্বামী হেমাজউদ্দিন শেক মারা জান। তার মৃত্যুর পর থেকেই আমেনা বেওয়া চার ছেলে মেয়ে নিয়ে বসবাস করেন। গত কয়েক দিন আগে ওই এলাকার বাসিন্দা মতিব শেকের বাড়ি থেকে প্রায় ৪০হাজার টাকা এবং একভরি সোনা চুরি যায়। তারপর থেকেই আমেনা বেওয়ার ছোট ছেলে রবিউল শেককে সন্দেহ করে। গতকাল রাতে তাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় মতিব শেক সহ বেশ কয়েক জন স্থানীয় যুবকেরা।

অভিযোগ এরপর ওই যুবককে বিদ্যুৎ এর লাইটপোষ্টে বেঁধে বেধড়ক মারধোর করে ইলেকট্রিক শক দেওয়া হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় মোথাবাড়ির থানার পুলিশ। আক্রান্ত নাবালকের মা আমেনা বেওয়ার অভিযোগ পুলিশর সামনে তার ছেলেকে মারধোর করে আমি বাধা দিতে গেলে আমাকেও মারধোর করা হয়। এরপর পুলিশ নাবালক রবিউল শেক কে মোথাবাড়ি থানায় নিয়ে যায়। পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি না করে থানাতেই নাবালক কে আবার প্রচন্ডহারে মারধোর করে বলে অভিযোগ। এরপর রবিউল শেকের বাড়ির লোকজন থানায় গিয়ে তাকে উদ্ধার করে আনে। আজ সকালে রবিউল শেক কে মালদা মেডিক্যালে ভর্তি করে। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে পরে মোথাবাড়ি থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়।