কলকাতা: বাংলায় একদিনে একজনের মৃত্যু হয়েছে৷ গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত আরও ১৮৮ জন৷ রবিবার সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন (State Health Department) এর বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী,রাজ্যে নতুন করে করোনা আক্রান্তের (COVID-19)সংখ্যা ১৮৮ জন৷ শুক্রবার ছিল ২৫৫ জন৷ বৃহস্পতিবার ২০৯ জন৷ সব মিলিয়ে বাংলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫ লক্ষ ৭৬ হাজার ৬২৩ জন৷

বাংলায়(West Bengal)গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৩৭ জন৷ শুক্রবার ছিল ২৬৩ জন৷ বৃহস্পতিবার ২১৭ জন৷ তার ফলে রাজ্যে মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লক্ষ ৬৩ হাজার ১৮২ জন৷ আর সুস্থতার হার বেড়ে ৯৭.৬৭ শতাংশ৷

রাজ্যে একদিনে মৃত্যু হয়েছে এক জনের৷ শুক্রবার ছিল ২ জন৷ বৃহস্পতিবার সংখ্যাটা ছিল মাত্র একজনে৷ বুধবার ২ জন৷ গত সোমবার অবশ্য সংখ্যাটা ছিল শূন্য৷ তা স্বত্বেও বাংলায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ২৭৮ জনে৷

তবে বাংলায় এক শতাংশ কমেছে মৃত্যুহার৷ ৩ মার্চ এর তথ্য অনুযায়ী, বাংলায় মৃত্যু হার ১ দশমিক ৭৮ শতাংশ৷ যা গত সোমবারও ছিল ১ দশমিক ৭৯ শতাংশ৷ যদিও পশ্চিমবঙ্গে বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীনের সংখ্যাটা ৪১৬ জন৷ হোম আইসোলেশনে ২,৮২৯ জন৷ সেফ হোমে নেই একজনও৷

একদিনে টেস্ট হয়েছে ২০ হাজার ২৫৯টি ৷ শুক্রবার ছিল ৮৫১ টি৷ বৃহস্পতিবার ১৯ হাজার ৪৯১টি৷ বুধবার ২০ হাজার ৩৩০৷ মোট করোনা টেস্ট হয়েছে সাড়ে ৮৬ লক্ষের বেশি৷ তথ্য অনুযায়ী ৮৬ লক্ষ ৯৮ হাজার ৮৫৩টি৷ ফলে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় টেস্টের সংখ্যা বেড়ে হল ৯৬,৬৫৪ জন৷

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা কমে ৩ হাজারের একটু বেশি৷ তথ্য অনুযায়ী,৩ হাজার ১৬৩ জন৷ শুক্রবার ছিল ২২৬ জন৷ বৃহস্পতিবার ৩ হাজার ২৩৬ জন৷ তুলনামূলক একদিনে ৫০ জন কম৷

এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ১০৫ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ১ টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷

বি: দ্র: – প্রতিদিন সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন থেকে যে বুলেটিন প্রকাশিত হয়,সেখানে আগের দিন সকাল ৯ টা থেকে বুলেটিন প্রকাশিত হওয়ার দিন সকাল ৯ টা পর্যন্ত তথ্য উল্লেখ করা হয়৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।