সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়: সিদ্ধার্থর কাছে এটা ফিরে আসার গল্প। লাইট, ক্যামেরা, অ্যাকশনের সঙ্গে রি-ইউনিয়নের গল্প। একসময় টেলিভিশনের পরিচিত মুখ পড়াশোনার জন্য অভিনয় থেকে বিরতি নিয়েছিল। দীর্ঘ বিরতির পর আবার ফিরছে সিদ্ধার্থ বোস। গল্পও সেই রি-ইউনিয়নেরই। সৌজন্যে সঞ্জয় বর্ধনের ‘ব্রাদার’ ছবি।

২০০৬ সালে সাধক বামাক্ষ্যাপা সিরিয়াল দিয়ে কেরিয়ার শুরু করেছিলেন সিদ্ধার্থ। বামাক্ষ্যাপার ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করতেন। তারপরে সাহেব চট্টোপাধ্যায়, তনুশ্রী চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে উৎসবের রাত্রি, হিট ধারাবাহিক সুবর্ণলতা, প্রেমের ঠাকুর শ্রী রামকৃষ্ণ, ভালোবাসা ডট কম একের পর এক সিরিয়ালের কাজ। ডিডি বাংলায় যুগপুরুষ বিবেকানন্দ ধারাবাহিকে তিনি বিবেকানন্দের ভূমিকায় অভিনয়ও করে ফেলেছিলেন কিন্তু বেশীরভাগ স্কুল পড়ুয়া অভিনেতাই পড়াশোনার জন্যে লাইম লাইট থেকে কিছুদিনের ব্রেক নেন। পরে আবার ফিরে আসেন। কেউ ব্রেকটা ছোট নেয়, কেউ বড়। সিদ্ধার্থ একটু বড় বিরতি নিয়ে ফের ফিরে আসছে। এবার একদম বড় পর্দায়। মাঝে অবশ্য প্রচুর শর্ট ফিল্মে কাজ করছিলেন।

২০১৭ সালে তিনি একটি স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবি ‘দূরত্ব’ এ মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন যেটি সেই বছর কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে পুরষ্কৃত হয় এবং বাংলাদেশ ও রাজস্থান চলচ্চিত্র উৎসবেও মনোনিত হয়। সঙ্গে জারি ছিল থিয়েটারে অভিনয়ও। আরও একটু নিজেকে ঘষে মেজে নিয়ে এবার সরাসরি বড় পর্দায় ফিরছেন সিদ্ধার্থ বোস।

এবার তিনি ফিরছেন একদম মেনস্ট্রিমে। ফিরছেন ‘ব্রাদার’ ছবির মাধ্যমে। পরিচালক সঞ্জয় বর্ধনের এর হাত ধরে এক অন্যরকম গল্প নিয়ে, যা চলতি বছর এপ্রিল মাসে মুক্তি পেতে চলেছে। সিদ্ধার্থ বলেন , ‘ব্রাদার মূলত সাত বন্ধুর গল্প, যা স্কুল জীবনের স্মৃতিকে ফিরিয়ে আনবে। ব্রাদারের পরিচালক সঞ্জয় বর্ধন নিজের জীবন থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই এই ছবি বানিয়েছেন। শ্যুটিং হয়েছে আসানসোলে বিজের স্কুল সেন্ট ভিনসেন্টেই।’ সিদ্ধার্থ আরও বলেন, ‘এই গল্প একটা স্কুল রিইউনিয়নের, যেখান থেকে ফিরে আসে অতীতের স্কুল জীবন। আমার সঙ্গে

এই ছবিতে অভিনয় করেছেন অভিরূপ, পিয়া দেবনাথ, গুড্ডু, সুরজিৎ, অর্পন, সুপ্রতিম, এবং আমান। আমার বিপরীতে থাকছেন শ্রেয়া। আমার চরিত্রের নাম পার্থ, যে পড়াশোনায় ভালো না হলেও খেলাধূলা চোস্ত। স্কুলে মেয়েদের ‘অল টাইম ফেভরিট’। চকলেটি হিরোকে মেয়েরা বেশ পছন্দই করে। সোজা কথায় মহিলা মহলে পরিচিত মুখ। যে কোনও সুন্দরীর সব সময়ের ‘পার্থ’।

এই ছবির সঙ্গীত পরিচালক অভিষেক বসু। কিছু দিনের মধ্যেই জি মিউজিক থেকে এই ছবির একটি গান মুক্তি পেতে চলেছে। যা গেয়েছেন দিয়া দাস। ছবির পরিচালক সঞ্জয় বর্ধন ইতিমধ্যেই তার ‘বক্সার’ ও ‘ফেকবুক’ এর মত ছবি দিয়ে দর্শকের প্রশংসা কুড়িয়েছে। সিদ্ধার্থ বলছেন, ‘সবার জন্যই এই ছবি গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু আমার কাছে একটু বেশি। বোস ইজ ব্যাক বলতে হবে তো।’