ফাইল ছবি৷

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: পুলওয়ামায় সেনা জওয়ান মৃত্যুর ঘটনায় বরাবরই কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ও প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সুড় চড়িয়ে আসছে বিরোধী দলগুলি৷ তার মধ্যে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অন্যতম৷ পুলওয়ামার ঘটনার পরই তিনি বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছিলেন, সামনেই লোকসভা ভোট, তাই সেনার রক্ত নিয়ে রাজনীতি করতে চাইছেন প্রধানমন্ত্রী৷

পুলওয়ামার ঘটনার ১২ দিনের মাথায় যখন পাল্টা ভারতের বায়ুসেনা পাকিস্তানের জঙ্গিঘাঁটি ধ্বংস করে তার প্রমাণ দেখতে চেয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা৷ আর এবার উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের করা মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করলেন মমতা৷

সোমবার গাজিয়াবাদে এক জনসভায় উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ভারতীয় সেনাকে মোদীর সেনা বলে আখ্যায়িত করেছেন৷ আর তাতেই যত সমস্য৷ এই সোশ্যল মিডিয়ায় এই ট্যুইট ট্রোলড হতেই পাল্টা যোগীর বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে ট্যুইট করেন মমতা৷ এদিন ট্যুইট করে মমতা জানান, ভারতীয় সেনা আমাদের দেশের সম্পদ৷ কিন্তু তাদেরকে মোদীর সেনা বলে অপমান করেছেন যোগী৷ এই ঘটনা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক৷ উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর এহেন মন্তব্যে হতভম্ব মমতা দেশের সকল মানুষকে প্রতিবাদ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন৷

শিয়রে লোকসভা নির্বাচন৷ আর নির্বাচনের দিন যত এগোচ্ছে ততই সেনা জওয়ানদের হাতিয়ার করে প্রচারকে আরও জোরদার করতে মাঠে নেমেছে গেরুয়া শিবির৷ বিজেপি। এদিন গাজ়িয়াবাদের ওই জনসভায় মোদীর জয়গান করতে গিয়ে ভারতীয় সেনাকে ‘মোদীর সেনা’ বলে বিতর্ক তৈরি করেছেন যোগী আদিত্যনাথ।

মোদীর প্রশংশার পাশাপাশি কংগ্রেসকে আক্রমণ করে এদিন আদিত্যনাথের দাবি, ‘‘কংগ্রেসের যা স্বপ্নেও বাবতে পারে না, মোদী তা করে দেখায়৷ মোদীর কাছে সব কিছু সম্ভব৷ পাশাপাশি তাঁর কটাক্ষ, “কংগ্রেসের লোকজন আতঙ্কবাদীদের বিরিয়ানি খাওয়ায়। আর, নরেন্দ্র মোদীর সেনা গুলি আর গোলা দেয়। এটাই যা পার্থক্য।” তাঁর আরও দাবি, ‘‘কংগ্রেসের লোকজন মাসুদ আজহারের মতো লোকদের সম্মান দিয়ে কথা বলে।’’এটাই বিজেপি এবং কংগ্রেসের মধ্যে পার্থক্য বলে দাবি করেছেন আদিত্যনাথ। যোগী বলেন, কংগ্রেসের কাছে যা অসম্ভব, তাই সম্ভব নরেন্দ্র মোদীর কাছে। এখানেই ক্ষান্ত নন, যোগীর কথায়, মোদী যেখানে, সেখানেই সব কিছু সম্ভব।