চেন্নাই : জয়ললিতার শারীরিক অবস্থার সম্পর্কে সমস্ত তথ্য জানানোর নির্দেশ দিল মাদ্রাজ হাইকোর্ট৷তামিলনাড়ু সরকারের সরকারী আইনজীবীর কাছে ‘আম্মা’র শারীরিক অবস্থার বিবরণ চেয়ে পিটিশনটি দেওয়া হয়েছে।

তামিলনাড়ু সরকার ‘আম্মা’র অসুস্থতা নিয়ে কোনোরকম মুখ না খোলায় ‘এআইএডিএমকে’ সরকারের বিরুদ্ধে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়৷এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতেই তামিলনাড়ু সরকারের কাছ থেকে পিটিশন চাওয়া হয়েছে৷মামলাকারী জানতে চেয়েছেন, যদি মুখ্যমন্ত্রীর সুস্থ হতে সময় লাগে তাহলে তাঁর জায়গায় কী অন্য কাউকে আনা হবে তাও জানানো হোক৷
জয়ললিতা গত সেপ্টেম্বরের ২২ তারিখে জ্বর ও ডিহাইড্রেশন নিয়ে চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতালে ভরতি হয়েছিলেন৷তাঁর দল ‘এআইএডিএমকে’ তাঁর অসুস্থতা সম্পর্কে সঠিক তথ্য গোপন করে৷তাঁরা জানায় যে ‘আম্মা’ ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন এবং তিনি হাসাপাতাল থেকেই প্রশাসনিক সমস্ত কাজকর্ম করছেন৷ এমনকি তিনি ‘কাবেরী ইস্যু’ নিয়েও সম্প্রতি একটি বৈঠকও করেন৷
অ্যাপোলো হাসপাতালের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল ‘আম্মা’র চিকিৎসা খুবই যত্ন সহকারে করা হচ্ছে, তাঁর এখন বিশ্রামের প্রয়োজন৷বিশ্রাম নিলেই তিনি কিছুদিনের মধ্যেই সুস্থ হয়ে ওঠবেন৷দলের মুখপাত্র সি.আর সরস্বতী জানিয়েছেন,তিনি এখন আগের থেকে অনেকটাই সুস্থ রয়েছেন, কিছুদিনের মধ্যেই তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হবে৷
তামিলনাড়ুর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী করুণানিধি তামিলনাড়ু সরকারের কাছে ‘আম্মা’র সুস্থ হয়ে ওঠার প্রমাণস্বরুপ একটি ফটো প্রকাশের দাবী জানান,কিন্তু ‘এআইএডিএমকে’ তা দিতে অস্বীকার করে৷তাঁরা জানায় যে একজন মহিলার ছবি কখনই প্রকাশ করা যায় না৷
‘আম্মা’র অসুস্থতা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানোর জন্য ‘এআইএডিএমকে’ কিছু মানুষের বিরুদ্ধে চারটি পুলিশ কেসও রুজু করেছে বলে জানা গিয়েছে৷