নয়াদিল্লি: পার্টি অফিসের সামনেই ঝগড়া। ঝগড়ার সময় পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল যে নিজেকে আর সংযত রাখতে পারছিলেন না তিনি। যার জেরে খোদ পার্টি অফিসে দলীয় সদস্যদের সকলের সামনে নিজের স্ত্রীর গালে থাপ্পড় মারলেন দিল্লির মেহরৌলি জেলার এক বিজেপি নেতা।

ঘটনার পর দলীয় পদ থেকে অপসারিত করা হয়েছে ওই নেতাকে। সূত্রের খবর, গুনধর ওই নেতার নাম আজাদ সিং। বৃহস্পতিবার দিল্লির মেহরৌলি জেলার বিজেপি প্রধান দলীয় বৈঠক শেষ করে বাইরে আসতেই তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে বাক বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। আর সবার সামনেই স্ত্রীর গালে চড় মারেন তিনি। বৃহস্পতিবার থেকে এই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তার জেরেই নেতার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয় দল।

আরও পড়ুন : নাগার্জুনার বাড়ি থেকে উদ্ধার পচাগলা দেহ

ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, অনেক কর্মীদের সামনে স্ত্রী সরিতা রায়ের গালে চড় মারছেন বিজেপির ওই সভাপতি। সূত্রের খবর, ঘটনার পরে তাঁকে সরিয়ে অন্য একজনকে বিজেপির সভাপতি পদে নিয়োগ করা হয়েছে। শুধু তাই নয় এই ঘটনার বিষয়ে রিপোর্ট তৈরি করতে দলের সদস্যদের নিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিজেপি প্রধান মনোজ তিওয়ারি।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভেরকরের সঙ্গে একটি বৈঠক সেরে ফিরবার পথে দলীয় কার্যালয়ের সামনে এই ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন দলের শীর্ষনেতৃত্ব। তাঁদের সকলের সামনে এই ঘটনা ঘটায় বিজেপির ওই জেলা সভাপতি।

আরও পড়ুন : ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার বিজেপির প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

সংবাদ সংস্থা পিটিআইএর কাছে দেওয়া একটি সাক্ষাতকারে বিজেপির আরেক নেতা জানিয়েছেন, আজাদ সিংয়ের স্ত্রী সরিতা রায় দিল্লির প্রাক্তন মেয়র ছিলেন। বর্তমানে তাঁদের মধ্যে পারিবারিক ঝামেলা চলছিল। আর তা থেকেই সকলের সামনে চড় মারেন ওই নেতা। তিনি আরও বলেন, ওদের মধ্যে ডিভোর্সের মামলা চলছে।

অন্যদিকে আজাদ সিং নিজের পক্ষেই কথা বলেছেন। তিনি জানিয়েছেন, পার্টি অফিসের সামনে এসে তাঁর স্ত্রী প্রথমে তাঁকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে । এমনকি ওই নেতা আরও দাবী করে বলেছেন প্রথমেই নাকি তাঁর স্ত্রী তাঁর উপর চড়াও হয়। তারপরেই নাকি তিনি তাঁর গালে থাপ্পড় মারেন। যদিও এই ঘটনায় কোনও পক্ষই পুলিশের কাছে কোনও অভিযোগ দায়ের করেননি। কিন্তু দলের পক্ষ থেকে আজাদের বিরুদ্ধে যে কড়া শাস্তির পদক্ষেপ নেওয়া হবে সেই কথা স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছে দল।