নয়াদিল্লি: বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের পর হামলা চালাতে ছুটে এসেছিল পাক এয়ার ফোর্স। পাক ফোর্সকে জবাব দিতে ছুটে যায় ভারতীয় বায়ুসেনাও। যে ঘটনার দিনই পাক বিমান তাড়া করতে গিয়ে পাকিস্তানের হাতে বন্দি হন উইং কমান্ডার অভিনন্দন। পাকিস্তান দাবি করে সেদিন নাকি ভারতের একটি সুখোই বিমান গুলি করে নামিয়েছিল তারা। যদিও ভারত প্রথম থেকেই সেই দাবি অস্বীকার করে এসেছে।

এবার সেই সুখোই বিমান আকাশে উড়িয়ে ভারত প্রমাণ করল যে পাকিস্তানের হাতে কোনও সুখোই বিমান ভেঙে পড়েনি।

মঙ্গলবার ছিল এয়ার ফোর্স ডে। আর এদিন হিন্দন এয়ার ফোর্স স্টেশনে বিশেষ এয়ার শো-এর বন্দোবস্ত করা হয়েছিল। সেখানে ওড়ানো হয় তিনটি মিরজ-২০০০ বিমান ও দুটি সুখোই-৩০ এমকেআই। এই দুটিকে ‘অ্যাভেঞ্জার’ নামে ডাকা হয়। যেটিকে ‘অ্যাভেঞ্জার ১’ বলা হয়, সেটি এদিন দেখা গিয়েছে একেবারে ডানদিকে। আর এটিই হল সেই বিমান, যেটি পাকিস্তান গুলি করে নামিয়েছে বলে দাবি করা হয়।

শুধু তাই ন, পাকিস্তানকে আরও বেশি অস্বস্তিতে ফেলে সেই দু’জন ক্রু-কে দিয়েই এদিন ওই বিমানটি উড়িয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনা, যাঁরা পাকিস্তানের সঙ্গে সেদিনের আকাশ যুদ্ধে বিমান উড়িয়েছিলেন।

২৭ ফেব্রুয়ারির সেই ঘটনায় আদলে পাকিস্তানের F-16 এয়ারক্রাফট গুলি করে নামিয়েছিলেন অভিনন্দন। আর সেটা ধামাচাপা দিতে সুখোইয়ের গল্প তৈরি করেছিল পাকিস্তান।

এয়ার ফোর্স ডে-তে এদিন মিগ বিসন এয়ারক্রাফট উড়িয়েছেন অভিনন্দন বর্তমানও। যিনি একরাত বন্দি ছিলেন পাকিস্তানে। পরের দিনই তাঁকে ফিরিয়ে আনা হয় দেশে।

হিন্দন এয়ার ফোর্স স্টেশনে নিজের ৮৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করছে। আজকের এই দিনটি আরও একটি কারণের জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ, কেননা এদিনেই কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং ফ্রান্সে প্রথম রাফায়েল গ্রহণ উপস্থিত থাকবেন।

এদিন নয়াদিল্লির ন্যাশানাল ওয়ার মেমোরিয়ালে পুষ্পস্তবক দিয়ে সম্মান জানান বায়ুসেনা আধিকারিকরা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই দিনে ট্যুইটারে মৃত বায়ুসেনা এবং তাদের পরিবারের প্রতি সম্মান জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন ভারতীয় বায়ুসেনারা তাদের শেষ নিঃশ্বাস দিয়েও দেশকে রক্ষা করেন। তাদের দায়িত্ব, কর্তব্যনিষ্ঠায় তিনি গর্ব অনুভব করেন।