স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বাম-কংগ্রেস জোটের অন্যতম কাণ্ডারি তিনি৷ লোকসভা ভোটেও তিনি বামেদের হাত ধরতে চেয়েছিলেন৷ সেই প্রবল তৃণমূল বিরোধী কংগ্রেস নেতা ওমপ্রকাশ মিশ্র শেষমেশ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শরণাপন্ন হলেন৷

বুধবার দুপুরে রাজ্যের পরিবহণ ও সেচমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে বিধানসভায় যান ওমপ্রকাশ মিশ্র৷ প্রথমেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করেন এই বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা। তারপর মমতা নিজেই ওমপ্রকাশবাবুর যোগদানের কথা ঘোষণা করেন। তৃণমূলনেত্রী জানিয়েছেন, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তথা কংগ্রেস নেতাকে দলের এডুকেশন সেলের দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি তৃণমূলের কোর কমিটিতেও নেওয়া হবে তাঁকে। উল্লেখ্যযোগ্য বিষয়, এদিন ওমপ্রকাশ যখন তৃণমূলে যোগ দিচ্ছিলেন তখন লোকসভার দলনেতা হওয়ার জন্য সোমেন মিত্ররা বিধানসভায় ডেকে সংবর্ধনা দিচ্ছেন অধীররঞ্জন চৌধুরীকে।

আরও পড়ুন : চাপা কোন্দলকে দূরে সরিয়ে একমঞ্চে অধীর-সোমেন-মান্নান

কিছুদিন ধরেই ওমপ্রকাশের গলায় শোনা যাচ্ছিল তৃণমূলের সুর৷ বিজেপিকে ঠেকাতে তিনি তৃণমূল-কংগ্রেস জোটের পক্ষে সওয়াল করে আসছিলেন৷ অনেকেই মনে করছেন কংগ্রেসের ভিতর তিনি কোণঠাসা হয়ে পড়াতেই তিনি তৃণমূলে গিয়েছেন। তবে ওমপ্রকাশের দলবদলকে খুব একটা আমল দিচ্ছে না প্রদেশ নেতৃত্ব৷ রাজনৈতিক মহলে শোনা যাচ্ছে, তৃণমূলে গিয়ে রাজ্যসভার সাংসদ হতে চাইছেন ওমপ্রকাশ মিশ্র। কয়েকদিনের মধ্যেই তৃণমূলের বেশ কয়েকটি রাজ্যসভার আসন খালি হবে। সেখান থেকেই তিনি সংসদের উচ্চকক্ষে যেতে যান বলে মনে করছেন অনেকে।

এক প্রদেশ কংগ্রেস নেতার কথায়, যাঁর যেখানে খুশি সে সেখানে যাবেন৷ ওনার হয়তো মনে হয়েছে কংগ্রেসের বাজার খারাপ, এখানে থেকে কোনও লাভ নেই তাই হয়তো তৃণমূলে গিয়েছেন৷ এখানে আমাদের কিছু বলার নেই৷ তবে দল ভাঙানো নিয়ে তৃণমূল যে বড় বড় কথা বলে সেটা তাদের মুখে মানায় না৷