প্যারিস: বিশ্বকাপ জিতলে সাধের বাহারি চুল কেটে ফেলবেন৷ এমন প্রমিসই করেছিলেন ফ্রান্সের তারকা স্ট্রাইকার অলিভার জিরুড৷ বিশ্বকাপ জয়ের এক সপ্তাহ হয়ে গিয়েছে৷ অনেকেই ভেবেছিলেন সেই প্রমিস হয়ত ভুলে গিয়েছেন তারকা ফুটবলার৷

সত্যিটা প্রকাশ পেল রবিবার৷ প্রমিসের কথা ভোলেননি জিরুড৷ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কথা রেখেছেন জিরুড৷ মাথার চুল কামিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি পোস্ট করেছেন ফরাসি স্ট্রাইকার৷

ফুটবল দুনিয়ায় অন্যতম সেরা হেয়ারস্টাইলের মালিক ছিলেন জিরুড৷ তাঁর ব্যাকব্রাশ চুলের স্টাইল মহিলা ফ্যানেদের হৃদয়ে ঝড় তুলত বলা চলে৷ সেই বাহারী চুল কেটেই প্রমিস রক্ষা করলেন ফরাসি ফুটবলার৷ রাশিয়ার মাটিতে একটিও গোল না পেলেও ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ের পিছনে তাঁর অবদান কম ছিল না৷ পুতিনের দেশে ফরাসি দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিলেন জিরুড৷ রাশিয়া থেকে কামব্যাকের পর এই মুহূর্তে ছুটির মধ্যে রয়েছেন জিরুড৷ দু’সপ্তাহের মধ্যেই প্রিমিয়র লিগের ক্লাব চেলসির প্রি-সিজনে যোগ দিতে দেখা যাবে তাঁকে৷

শুধু জিরুডই নয় অন্য ফুটবলাররাও বিশ্বকাপ জিতলে মজার সব কাণ্ড ঘটাবেন বলে প্রমিস করেছিলেন৷ ফ্রান্স বিশ্বকাপ ট্রফি জিতলে জিরুডের মতো মাথা কামানোর প্রমিস করেছিলেন নেবিল ফেকির৷ জুভেন্তাসে খেলা মিডফিল্ডার মাতুদি আবার প্রমিস করেছিলেন ফ্রান্স থেকে তুরিন সাইকেল চালিয়ে যাবেন৷ জিরুড তো কথা রাখলেন অন্যরা এবার কীভাবে তাঁদের প্রমিস রক্ষা করেন সেটাই এখন দেখার৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।