নয়াদিল্লি: দেশ জুড়ে শুরু হয়েছে তৃতীয় পর্যায়ের লক ডাউন। আর এই লক ডাউনে সাধারন মানুষদের স্বস্তি দেওয়ার জন্য কেন্দ্রের তরফে বেশ কিছু পরিষেবাতে ছাড় দেওয়া হয়েছে। ই কমার্স পরিসেবাও শুরু করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে তাও গ্রিন এবং অরেঞ্জ জোনে। আর এবারে জানানো হয়েছে অনলাইন ক্যাব সংস্থা ওলা এবং উবের গ্রিন এবং অরেঞ্জ জোনে নিজেদের স্বাভাবিক পরিষেবা দেওয়া শুরু করবে।

করোনা মহামারীর কারণে সরকারের তরফে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল সব ধরনের পরিষেবার উপরে। জানানো হয়েছিল কেবলমাত্র প্রয়োজনীয় দ্রব্য ছাড়া অন্য কোন পরিষেবার ব্যবহার সাময়িক বন্ধ রাখা হবে। এছাড়া সকল সংস্থার তরফে জানানো হয়েছিল ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অর্থাৎ কর্মীরা যাতে নিজেদের বাড়ি থেকে কাজ করে সেই নির্দেশিকাও জানানো হয়েছিল।

তবে তৃতীয় দফায় লক ডাউন শুরু হওয়াতে কিছু পরিষেবার ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়াতে সুবিধা হবে মানুষের। মূলত এই মুহূর্তে সাধারণ মানুষজন ক্যাব পরিষেবার উপরে ভীষণ ভাবে নির্ভরশীল। তাই এই পরিষেবাতে ছাড় দেওয়াতে কিছুটা হলেও সুবিধা পেলেন সাধারনেরা। তবে কেবলমাত্র গ্রিন এবং অরেঞ্জ জোনে। পরিষেবা স্থগিত থাকবে রেড জোনে।

ওলার তরফে জানানো হয়েছে দেশ জুড়ে ১০০ টি শহরে তারা তাদের পরিষেবা শুরু করবে। সরকারি নির্দেশ মেনেই তারা এই পরিষেবা শুরু করবে বলেও জানিয়েছে। এছাড়া লক ডাউনে লঞ্চ হওয়া ওলা এমারজেন্সি পরিষেবা ১৫ টি শহরে নিজেদের পরিষেবা দেবে বলেও জানা গিয়েছে। এই পরিষেবাতে নন কোভিড রোগীদের হাসপাতাল থেকে বাড়ি এবং বাড়ি থেকে হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়ার পরিষেবা দেওয়া হয়। তাদের তরফে এও জানানো হয়েছে স্যানাটাইজিং বিষয়টিতে যথেষ্ট গুরুত্ব দেওয়া হবে।

ক্যাবের ক্ষেত্রে জানানো হয়েছে কেবল মাত্র দুজন করে প্যাসেঞ্জার নেওয়া যাবে। আর এসি ব্যবহার বন্ধ রাখতে হবে। গাড়ির জানলা খুলে রাখা বাধ্যতামূলক। এছাড়াও উবেরের তরফে জানানো হয়েছে তারা দেশের প্রায় ২৫ টি শহরে তারা নিজেদের পরিষেবা শুরু করবে। উবেরের তরফেও জানানো হয়েছে স্যানিটাইজিংয়ে গুরুত্ব দেওয়া হবে। তারা সরকারি নির্দেশ মেনেই সাধারণকে পরিষেবা দেবে। এছাড়াও ক্যাব বাতিলের ক্ষেত্রেও স্বচ্ছতা রাখা হবে। অর্থাৎ কোন যাত্রী যদি মনে করেন চালক সঠিক নিয়ম মানছেন না সেই ক্ষেত্রে তিনি তা বাতিল করতে পারেন।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।