রিয়াধ:  জুলাই মাসে জ্বালানি তেল উত্তোলনে রেকর্ড করতে যাচ্ছে সৌদি আরব। দেশ আগামী মাসে প্রতিদিন এক কোটি ৮০ লাখ ব্যারেল তেল উত্তোলনের পরিকল্পনা নিয়েছে। তেলের দাম কমানোর জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তেল উত্তোলন বাড়ানোর যে আহ্বান জানিয়েছেন তার প্রতি দ্রুত সাড়া দিয়ে সৌদি আরব তেল উৎপাদন বাড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পা নিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন আধিকারিক জানিয়েছে, সৌদি রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানি আরামকো জুলাই মাস থেকে বাড়তি ৮০ লাখ ব্যারেল তেল উত্তোলন করবে। তেলের বাজার শান্ত করার প্রচেষ্টা হিসেবে সৌদি আরব এই পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে। ব্লুমবার্গের রিপোর্টে বলা হয়েছে, বাড়তি ৮০ লাখ ব্যারেল তেল উত্তোলন করলে তা হবে সৌদি আরবের জন্য এই যাবৎকালের মধ্যে সবচেয়ে বেশি তেল রপ্তানির রেকর্ড।

২০১৬ সালের জুলাই মাসে আরামকো কোম্পানি প্রতিদিন সর্বোচ্চ এক কোটি ৭২ লাখ ব্যারেল তেল উত্তোলন করেছিল। ব্লুমবার্গ বলছে, বাড়তি তেল সরবরাহ করার জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সৌদি আরবের ওপর যে চাপ সৃষ্টি করেছেন তাতে নজিরবিহীনভাবে সাড়া দিয়েছে রিয়াদ। আগামী নভেম্বর মাসে মার্কিন কংগ্রেসের মধ্যবর্তী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তার আগে তেলের দাম কমানোর জন্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বিশেষভাবে তৎপর হয়েছেন। সে কারণে তিনি সৌদি আরবের ওপর চাপ সৃষ্টি করে তেলের উৎপাদন বাড়াতে চান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।