তেহরান:  নতুন একটি বৃহৎ তেলের সন্ধান মিলল ইরানে। মার্কিন নিষেধাজ্ঞার মধ্যে বৃহৎ এই তেল খনির সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। এমনটাই জানিয়েছেন সে দেশের প্রেসিডেন্ট হাসান রৌহানি। সমীক্ষা বলছে, ওই ভাণ্ডার থেকে ৫৩০০ কোটি ব্যারেল অপরিশোধিত তেল উত্তোলন করা যেতে পারে। যা ইরানের বর্তমান তেলধারণ ক্ষমতা প্রায় ৩৪ শতাংশ বাড়িয়ে দেবে। ২ হাজার ৪০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ওই তৈলভাণ্ডারটির খোঁজ পাওয়া গিয়েছে ইরানের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে খুজেস্তান প্রদেশে।

পড়ুন আরও- ১১ জন ক্রিকেটারকে দল থেকে ছেঁটে ফেলল কলকাতা নাইট রাইডার্স

ইরানের তেলমন্ত্রী বিজান জাঙ্গানেহ জানিয়েছেন তার দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে নতুন যে তেলক্ষেত্রটি আবিস্কার হয়েছে সেটি হচ্ছে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম তেল খনি। একই সঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন, ইরানি বিশেষজ্ঞরা ইরানের খুজিস্তান প্রদেশে অবস্থিত এই খনি আবিষ্কার করেছেন। আশা করা হচ্ছে সেখানে পাঁচ হাজার ৩০০ কোটি ব্যারেল তেলের মজুদ রয়েছে। এই প্রসঙ্গে তেলমন্ত্রী আরও বলেন, ইরানের সবচেয়ে বড় তেল ক্ষেত্রে তেলের পরিমাণ রয়েছে ছয় হাজার ৫০০ কোটি ব্যারেল। সেটি দেশের আহওয়াজ প্রদেশে অবস্থিত। এবার আরও তেলের ভান্ডারের সন্ধান মিলল তেহরানে।

পড়ুন আরও- শোকের ছায়া ইন্দ্রাণীর পরিবারে, চলে গেলেন ইন্দ্রনীল

তেলমন্ত্রী আরও জানান, ২০১৬ সালে খুজেস্তান প্রদেশে নতুন ক্ষেত্র আবিষ্কারের জন্য খননকার্য শুরু হয়। প্রথমদিকে তাতে তিন হাজার ১০০ কোটি ব্যারেল তেল আছে বলে প্রমাণ পাওয়া যায়। এরপর খননকার্যের একপর্যায়ে সেখানে আরও দুই হাজার ২০০ কোটি ২০ লাখ ব্যারেল তেলের খোঁজ মেলে। যা দেখে তেহরানের বিজ্ঞানীরা আনন্দে ফেটে পড়েন। ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি ইয়ায্‌দ শহরের এক সমাবেশে ঘোষণা করেছিলেন যে, খুজেস্তান প্রদেশে নতুন একটি তেল খনির সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। এটি হচ্ছে দেশের জনগণের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে ছোট্ট একটি উপহার।

অন্যতম বৃহৎ তেল খনিটি ভূপৃষ্ঠ থেকে ৩.১ কিলোমিটার গভীরে অবস্থিত। এর পুরুত্ব হচ্ছে গড়ে ৮০ মিটার। খনিটি বোস্তান থেকে উমিদেহ পর্যন্ত বিস্তার করে রয়েছে। বিশাল এই খনির আয়তন ২,৪০০ বর্গ কিলোমিটার। ইরানের তেলমন্ত্রী বিজান জাঙ্গানেহ বলেন, খননকার্য চালালে এই খনিটি সম্ভবত দক্ষিণ-পশ্চিম এবং পূর্ব দিকে আরো বিস্তৃত হতে পারে। আর সেই কারণে ধীরে ধীরে খননকাজ চালিয়ে যাচ্ছে সে দেশের সরকার। নতুন কিছুর আশায়।